28/11/2022 : 12:49 PM
BREAKING NEWS
খেলাফুটবল

শতবর্ষের ফুটবল ডার্বিতে এটিকে মোহনবাগান জয়ী


অপূর্ব দাস


বাংলার ফুটবল ডার্বির শতবর্ষে জয়ী হলো এটিকে মোহনবাগান। চির প্রতিদ্বন্দ্বী ক্লাবকে হারানোর আনন্দই আলাদা। সেটা ফের বোঝাগেল এটিকে মোহনবাগান জেতার পরে। এসসি ইস্টবেঙ্গলকে হারিয়ে সবুজ মেরুন সর্মথকরা বেজায় খুশি। অন্যান্য জায়গার মতো বর্ধমানেও খেলার শেষে মোহনবাগান সমর্থকরা আনন্দ প্রকাশ করে।


ফুটবল ডার্বির আগে মোহনবাগান ও ইস্টবেঙ্গল-এর বেশ কয়েকজন সমর্থকদের সঙ্গে কথা বলেছিলাম। দুই দলের সমর্থকরাই জয়ের জন্য ছিল আশাবাদি। বর্ধমানের মোহনবাগান ফ্যানস ক্লাবের সদস্য চিত্তরঞ্জন দাস ও বর্ধমান মোহনবাগান ওয়ারিয়ার্সের সদস্য রাজীর চৌধুরী ডার্বিতে  মোহনবাগানকে এগিয়ে রাখার বিষয়ে কয়েকটা যুক্তির কথা জানিয়েছিলেন। সবুজ মেরুন সমর্থক নেপালচন্দ্র দে-র কাছথেকেও মোহনবাগানের জেতার পক্ষে যুক্তি শুনেছি। বাংলার ফুটবল ডার্বির আগে লাল হলুদ ও সবুজ মেরুন সমর্থকদের বিভিন্ন যুক্তি সোশ্যাল মিডিয়ায় দেখা গেছে। ফুটবল ডার্বি হবে ; আর না না রকম তর্ক বির্তক হবেনা; সেরকম আবার হয় না কী?  প্রিয় ফুটবল ডার্বি হবে। সমর্থকদের সোশ্যাল মিডিয়ায় তর্ক জমবে। মজা হবে, ঠাট্টা ইয়ার্কি দেখা যাবে নিজেদের মধ্যে। আর খেলার পরে হয়তো কোন সবুজ মেরুন সমর্থক তার লাল হলুদ সমর্থক বন্ধুকে মোবাইল ফোনে বলবে, ‘কালকে আমার জন্য স্টেশনে একটু অপেক্ষা করিস। আমিও কালকে সকালের ট্রেনে কলকাতা যাবো।’


২৭ নভেম্বর ফুটবল ডার্বি দেখার পরে ‘মিলনী’র ক্রীড়া সম্পাদক ও বর্ধমান মোহনবাগান ওয়ারিয়ার্সের সদস্য  রাজীব চৌধুরী বলেন, দেশের এক নম্বর ফুটবল টুর্নামেন্ট ইন্ডিয়ান সুপার লিগে প্রথম ডার্বিতে আমাদের প্রিয় ক্লাব ২-০ গোলে জিতেছে। এইজন্য আমরা খুব খুশি। খেলার আগে আমার মনে হয়েছে,  জেতার সম্ভাবনা আমাদের ক্লাবের বেশি। তবুও ডার্বি বলে কথা। টেনশন একটু ছিলোই। সত্তিকথা কী জানেন, প্রথমমার্ধে গোল না হওয়ায় টেনশন হচ্চিলো। দ্বিতীয় অর্ধে চার মিনিটে  রয় কৃষ্ণ গোল করে। তখন টেনশন মুক্ত হই এবং মনে হয় আমাদের ক্লাব আরো একটা গোল করবে। রাজীব চৌধুরী এসসি ইস্টবেঙ্গলের খেলার সমন্ধে বলেন, ওদের গোলকিপার দেবজিৎ ভালো খেলেছে। গোল দুটোর জন্য গোলকিপারকে দোষ দেওয়া যায়না। ইস্টবেঙ্গল ডিফেন্সের খেলা ভালো লাগেনি। আইএসএল-এ ২৭ তারিখ ইস্টবেঙ্গল প্রথম ম্যাচ খেললো। প্রথম ম্যাচে খেলা সবসময় কঠিন। প্রথম ম্যাচে হারলেও এই টিম কয়েকটা ম্যাচের পরে ভালোই খেলবে বলে আমার মনে হচ্ছে। বর্ধমান মোহনবাগান ওয়ারিয়ার্সের তরুন সদস্য সায়ন্তন রায় বলেন, গোয়ার মাঠে ইস্টবেঙ্গলকে হারিয়েছে আমাদের প্রিয় ক্লাব মোহনবাগান। ডার্বির শতবর্ষে এই জয় সবুজ মেরুন ভক্তদের সারা জীবন মনে থাকবে এবং ডার্বির শতবর্ষের এই জয়
ফুটবল ইতিহাসে লেখা থাকবে।


বর্ধমান মোহনবাগান ফ্যানস ক্লাবের সদস্য চিত্তরঞ্জন দাস জানান, আইএসএল-এর প্রথম ডার্বিতে জয়ের বিষয়ে এটিকে মোহনবাগানকে এগিয়ে রেখেছিলাম। আমার অনুমান মিলে গেল। মোহনবাগান জেতায় আমি খুশি। এই ম্যাচে মোহনবাগান জিতলেও ইস্টবেঙ্গল টিমকে ছোট করে দেখার কারন নেই। এই টুর্নামেন্টে ইস্টবেঙ্গল নতুন দল। ওরা কয়েকটা ম্যাচ খেলার পরে আরো ভালো খেলবে বলে মনে করি। ক্রীড়া সংগঠক ও সবুজ মেরুন ভক্ত নেপালচন্দ্র দে বলেন, কোচ হাবাস দু’বার এটিকে-কে আইএসএল-এ চ্যাম্পিয়ন করেছে। গত বছরের অধিকাংশ ফুটবলার এবারও এটিকে মোহনবাগানে খেলছে। সেখানে ইস্টবেঙ্গল এই টুর্নামেন্টে প্রথম খেলছে। এই কারনে মোহবাগানের জয়ের বিষয়ে আশাবাদি ছিলাম। প্রক্তন ফুটবলার সংকেত রায় বলেন, মোহবাগানের রয় কৃষ্ণ ও মনবীর সিংহ গোল দুটো বেশ ভালো করেছে। রোমাঞ্চকর এই ফুটবল ডার্বি দেখে ভালো লেগেছে। প্রক্তন ক্রিকেটার ও ইস্টবেঙ্গল সমর্থক অতনু পুততুন্ড বলেন, আইএসএল-এর ডার্বিতে মোহনবাগান জিতেছে। মোহনবাগান দুটো গোল করেছে। ইস্টবেঙ্গল গোলের সুযোগ পেয়েছে। কিন্তু গোল করতে পারেনি। ইস্টবেঙ্গল হারলেও এই টিমের খেলা দেখে সমর্থকদের হতাশ হবার মতো কিছু নেই। কয়েকটা ম্যাচ খেলার পরে এই টিমের খেলায় অনেক উন্নতি হবে। ইস্টবেঙ্গল  সমর্থক সৌরভ ভট্টাচার্য্য বলেন, ডার্বিতে মোহনবাগান জিতেছে। জয়ী দলকে মর্যাদা দিয়ে বলা যায়, ইস্টবেঙ্গল কিন্তু খুব খারাপ খেলেনি। এই ডার্বির জন্য যেপর্যায়ে উৎসাহ বিভিন্ন জায়গায় দেখা গেছে তাতো বাংলার ফুটবল প্রেমীদের জয় বলে আমি মনে করি।


কলকাতা, শিলিগুড়ি, নৈহাটি, মেদিনীপুর, চন্দননগড়, শ্রীরামপুর, দুর্গাপুর, বারাসাত এবং অন্যান্য শহরের মতো বর্ধমানেও ফুটবল ডার্বি ঘিরে লাল হলুদ ও সবুজ মেরুন সমর্থকদের ব্যাপক উন্মাদনা দেখা গেছে। বর্ধমান মোহনবাগান  ওয়ারিয়ার্সের পক্ষ থেকে শহরের একটা হোটেলের কনফারেন্স রুমে বড় স্ক্রীণে ডার্বি দেখান হয় এবং মাস্ক দেওয়া হয়। আমন্ত্রীতরা এখানে বিনা খরচে খেলা দেখেন।

Related posts

উয়েফা নেশন্স লিগে ছন্দে ফিরল ইতালি

E Zero Point

স্টার্লিংয়ের গোলে শেষ মুহূর্তে জয় ইংল্যান্ডের

E Zero Point

আইপিএল থেকে সরে দাঁড়ালেন মালিঙ্গা

E Zero Point

মতামত দিন