24/07/2024 : 6:30 AM
আমার বাংলাকলকাতা

অবশেষে বিচারব্যবস্থাকে স্বাভাবিক করার আমাদের আবেদন মানা হলঃ পশ্চিমবঙ্গ শিক্ষক ঐক্য মুক্তমঞ্চ

শ্রীমন্ত ঘোষঃ গত ৩০ মে ইমেলই এর মাধ্যমে পশ্চিমবঙ্গ শিক্ষক ঐক্য মুক্তমঞ্চ পক্ষ থেকে সাধারণ সম্পাদক মইদুল ইসলাম ও সভানেত্রী ছবি চাকির স্বাক্ষরিত “স্বাস্থ্য সচেতনতা বজায় রেখে, অন্যান্য দপ্তরের মতো, বিচারব্যবস্থা কে স্বাভাবিক করার আবেদন” শীর্ষক চিঠি পাঠানো হয়েছিল রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমত বন্দ্যোপাধ্যায়, রাজ্যপাল, রাজ্যের আইন মন্ত্রী, মুখ্য সচিব, আইন সচিব ও কলকাতা হাইকোর্টের রেজিষ্টারকে।

চিঠিতে বলা হয়েছিল যে, করোনার প্রভাবে রাজ্য, দেশ তথা সারা বিশ্ব স্তব্ধ হয়ে আছে। সমগ্র মানবসভ্যতা চরম সন্ধিক্ষণে দাঁড়িয়ে আছে। সবকিছু পূর্বের ন্যায় স্বাভাবিক হতে সময় লাগবে, সেটাও সহজেই অনুমেয়।

এতদসত্ত্বেও, আপনার পুনর্বিবেচনার জন্য আবেদন করছি যে, গনতান্ত্রিক ব্যবস্থার একটা অন্যতম স্তম্ভ হলো আইনসঙ্গত বিচারব্যবস্থা। বিচারব্যবস্থা স্তব্ধ হয়ে গেলে গনতন্ত্র ক্ষতিগ্রস্ত হয় এবং কিছুক্ষেত্রে ভূলুণ্ঠিত হয়। দূর্ভাগ্যবশতঃ, এই লকডাউন এবং প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের মধ্যেও অনেক মানুষ অন্যায়ভাবে লাঞ্ছিত, অপমানিত এবং প্রতারিত হয়েছেন যাদের শেষ ভরসাস্থল একমাত্র আদালত। গনতান্ত্রিক বিচারব্যবস্থা বন্ধ থাকার সুবিধা নিয়ে, প্রভাবশালী স্বৈরাচারী মানুষেরা তাদের একনায়কত্ব স্থাপন করতে চাইছে সমাজের বিভিন্ন স্তরে, যেটা ভীষণ যন্ত্রনাদায়ক এবং গনতান্ত্রিক পরিকাঠামোর ক্ষেত্রে ক্ষতিকারক। অনলাইনের মাধ্যমে বিচারব্যবস্থাকে যতটুকু সচল রাখার প্রয়াস করা হচ্ছে, সেটা খুবই অপ্রতুল।
রাজ্য প্রশাসন যেখানে ধীরে ধীরে সবকিছুকে স্বাভাবিক করার শুভ প্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছেন নিরবিচ্ছিন্নভাবে, সেখানে শিক্ষক ঐক্য মুক্তমঞ্চ সংগঠনের পক্ষ থেকে আমরা সনির্বন্ধ অনুরোধ করছি বিচারব্যবস্থা কে স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরিয়ে আনার আন্তরিক প্রচেষ্টা করার জন্য। প্রয়োজনে, আদালতের অভ্যন্তরে স্বাস্থবিধান সংক্রান্ত কঠোর অনুশাসনের ঘেরাটোপ তৈরি করা হোক। আদালতের অভ্যন্তরে প্রবেশাধিকার সীমিত এবং সুনির্দিষ্ট করা হোক।

অবশেষে গত ১ জুন,  হাই কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল রাই চট্টোপাধ্যায় এই মর্মে একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করেছেন যে,  ‘আগামী ৮ জুনের পর থেকে স্বাভাবিক হচ্ছে কলকাতা হাইকোর্ট ‘। করোনা ভাইরাসের সাম্প্রতিক পরিস্থিতি পর্য্যালোচনা করে এই বিজ্ঞপ্তি বলে জানানো হয়েছে কলকাতা হাইকোর্টের তরফে। তবে করোনা বিধি বজায় রেখে চলবে কলকাতা হাইকোর্টের কাজকর্ম।


Related posts

নজরদারি বাড়ানোর জন্য সিসিটিভি ক্যামেরা মন্দির ও বাজারে

E Zero Point

করোনা ভাইরাসের জেরে ভাতারের রথযাত্রা উৎসব জৌলুসহীন

E Zero Point

মধ্যাহ্ন ভোজনের মাধ্যমে মন্ত্রীর জনসংযোগ

E Zero Point

মতামত দিন