29/09/2022 : 1:01 PM
BREAKING NEWS
আমার বাংলাদক্ষিণ বঙ্গপূর্ব বর্ধমানমেমারি

বিতর্ক পিছু ছাড়ছে না তৃণমূলেরঃ নমিনেশন করতে পারলেন না মেমারির প্রার্থী

জিরো পয়েন্ট নিউজ ডেস্ক, এম. কে হিমু, মেমারি, ৮ ফেব্রুয়ারি ২০২২:


১০৮টি পৌরসভা নির্বাচনের জন্য প্রার্থী ঘোষণার দিন থেকেই একের পর এক বিতর্ক তৃণমূল কংগ্রেসে। বিতর্কের কেন্দ্র বিন্দু যে প্রার্থী তালিকা, সে তালিকা এখনও সরানো হয়নি তৃণমূল কংগ্রেসের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজ থেকে। পুরভোটের প্রার্থীতালিকা নিয়ে দলের অন্দরে অসন্তোষ প্রসঙ্গে  তৃণমূল সুপ্রিমোমমতা বন্দ্যোপাধ্যায় স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন, সুব্রত বক্সী এবং পার্থ চট্টোপাধ্যায় যে তালিকা প্রকাশ করেছেন, সেটিই চূড়ান্ত। এছাড়াও পছন্দের প্রার্থী টিকিট না পাওয়ার কারণে জেলার বিভিন্ন পৌরসভার বিক্ষোভকেও বিশেষ গুরুত্ব না দিয়ে  তিনি জানান, কিছু জায়গায় ‘বিভ্রান্তি’ তৈরি হয়েছিল তা-ও এখন মিটে গিয়েছে। কিন্তু বিক্ষোভের আঁচ এখনও যে দলীয় নেতা কর্মীদের মনে কতটা আছে তার প্রমাণ পুরভোটের ফলাফল বলবে।

মঙ্গলবার পূর্ব বর্ধমান জেলা মহকুমাশাসকের (বর্ধমান দক্ষিণ) দফতরে মেমারি পৌরসভার ১৫ টি ওয়ার্ডের তৃণমূল প্রার্থীরা এ দিন মনোনয়ন জমা দেন কিন্তু ১১ নং ওয়ার্ডের মনোনীত প্রার্থী রেখা হেমব্রম আজ মনোনয়ন পত্র জমা দিতে পারেননি। জানা যায় গত ২০১৫ সালে ২৫ এপ্রিলের পৌর নির্বাচনের পর তিনি নির্বাচনী খরচের হিসাব নির্বাচন কমিশনকে জমা করেননি। নির্বাচন কমিশন এব্যপারে প্রথমে নোটিশ ও শোকজ পাঠায়। নির্দিষ্ট সময় সীমার মধ্যে শোকজের জবাবও ১১ নং ওয়ার্ডের প্রাক্তণ তৃণমূল কাউন্সিলর রেখা হেমব্রম জবাব দেননি। ফলে বর্ধমান দক্ষিণ জেলা মহাকুমা শাসক দপ্তরে ডিসিআর প্রক্রিয়ায় আটকে যায় তার নমিনেশন।

স্বাভাবিক ভাবেই প্রশ্ন উঠেছে দীর্ঘ সাত বছরের মধ্যে কেন নির্বাচনী খরচের খতিয়ান কমিশনের কাছে পেশ করেননি না পুরো ব্যপারটাকে গুরুত্ব দেওয়া হয়নি। শুধু রেখা হেমব্রমই নয় রাজ্য নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে ১/২/২০২২ তারিখে জারি করা নোটিশে দেখা যায় ২০১৫ সালের মেমারি পৌরসভা নির্বাচনের ২২ জন প্রার্থী নির্বাচনী খরচের হিসাব কমিশনকে দেননি।

বিগত মাসে শাসক দল তৃণমূলের প্রাক্তণ কয়েকজন কাউন্সিলরের কাছে শোকজ নোটিশ এলে তাদের মধ্যে ২০২২ এর পৌর নির্বাচনে তৃণমূল মনোনীত প্রার্থী রত্না দাস ও রণজিৎ বাগ শোকজের জবাব ও হিসাব পেশ করেন কিন্ত কোন অজানা কারণে রেখা হেমব্রম করলেন না সেটাই প্রশ্ন দল ও সাধারণ মানুষের মনে।

এব্যপারে প্রাক্তণ কাউন্সিলর রেখা হেমব্রম জিরো পয়েন্ট এর প্রতিনিধিকে টেলিফোনে জানান যে, এব্যপারে তিনি কিছু জানতেন না এবং উচ্চ নেতৃত্বও তাকে কিছু জানায়নি। তবে তিনি কোন আইনি লড়াইয়ে যাবেন না দল যা সিদ্ধান্ত নেবেন তা তিনি মেনে নেবেন। এ প্রসঙ্গে তিনি আরও বলেন ১১ নং ওয়ার্ডেরই কোন বাসিন্দা যেন প্রার্থী হতে পারেন সে ব্যপারে দলকে অনুরোধ করেছেন।

মেমারি শহর তৃণমূল কংগ্রেসের শহর সভাপতি স্বপন ঘোষাল বলেন, গোটা ব্যপারটাই দলের রাজ্য নেতৃত্বকে জানানো হয়েছে। দল প্রার্থী ঠিক করে সিদ্ধান্ত নেবেন। পরবর্তী সম্ভাব্য নাম কি হতে পারে এ ব্যপারে তিনি কোন মন্তব্য করতে চাননি।

বিতর্কিত প্রার্থী তালিকায় ১১ নং ওয়ার্ডে এলাকার তৃণমূল নেতা ডাঃ সেখ কুতুবউদ্দিনের স্ত্রী বিলকিস সেখের নাম থাকলেও পরবর্তীতে চূড়ান্ত নাম প্রাক্তণ কাউন্সিলর রেখা হেমব্রমের প্রার্থী হিসাবে মনোনীত হয়। স্থানীয় দলীয় কর্মী ও নেতাদের মধ্যে বিলকিস সেখ ছাড়াও আরও দুএকজনের নাম ঘোরা ফেরা করছে বলে বিশেষ সূত্রে জানা গেছে। এখন দেখা যাক তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা ব্যানার্জী কোন নামে সিলমোহর দেন।

 

Related posts

সাড়ে ৭ মাস পর আজ থেকে চলবে লোকাল ট্রেন, প্রস্তুতি তুঙ্গে মেমারি স্টেশনে

E Zero Point

সামসেরগঞ্জের নদী ভাঙন কবলিত এলাকায় সাহায্যের হাত শিক্ষকমন্ডলীর

E Zero Point

চোরাই ট্র্যাক্টর পাচারের পরিকল্পনা ভেস্তে দিল মেমারি থানা

E Zero Point

মতামত দিন