31/01/2023 : 6:54 PM
আমার বাংলাদক্ষিণ বঙ্গপূর্ব বর্ধমান

বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের ‘ধেড়ে ইঁদুর’ প্রসঙ্গে জামালপুরে বিস্ফোরক সৌমিত্র খাঁ

জিরো পয়েন্ট নিউজ – সুজিত দত্ত, বর্ধমান, ২ ডিসেম্বর ২০২২:


রাজ্যের দুর্নীতি প্রসঙ্গে বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় মন্তব্য করেছিলেন খুব শীঘ্রই ‘ধেড়ে ইঁদুর’ ধরা পরবে। এই ‘ধেড়ে ইঁদুর’ মন্তব্য নিয়ে ইতিমধ্যেই সারা রাজ্য জুড়ে ছড়িয়ে পরেছে চাঞ্চল্য। এই ধেড়ে ইঁদুর বলতে বিচারপতি কার কথা বলতে চাইছেন তা নিয়ে কৌতূহলের শেষ নেই। শুক্রবার জামালপুরে একটি প্রতিবাদ সভায় গিয়ে ‘ধেড়ে ইঁদুর’ সম্পর্কে বলতে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের নাম উল্লেখ করলেন বিজেপির রাজ্য সহ সহভাপতি তথা বিষ্ণুপুরের সাংসদ সৌমিত্র খাঁ।

এদিন তিনি বিস্ফোরক মন্তব্য করে সৌমিত্র বাবু বলেন, এই রাজ্যের ধেড়ে ইঁদুর অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় নিশ্চিত জেলে যাবে। তিনি বলেন রাজ্য কয়লা চুরি বালি চুরি, গরু চুরির পর তৃণমূলের নেতারা চাকরি চুরি করেছে। দুর্নীতির দায়ে যেমন জয়ললিতা, লালুপ্রসাদ যাদবকে জেলে পোড়া হয়েছে ঠিক ওইভাবেই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও ডিসেম্বরে গ্রেপ্তার হবেন বলে এদিন দাবী করেন সৌমিত্র বাবু। অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের ক্ষমতা থাকলে আমাকে গ্রেপ্তার করে দেখাক বলেও এদিন অভিষেককে সরাসরি চ্যালেঞ্জ ছোড়েন সৌমিত্র। এদিন বিজেপির প্রতিবাদ কর্মসূচিতে সাংসদ ছাড়াও ছিলেন রাজ্য কিষান মোর্চার সভাপতি মহাদেব সরকার, বিজেপির সদর জেলা সভাপতি অভিজিৎ তা সহ অন্যান্য বিজেপি নেতৃত্ব।

এদিন বিজেপির সাংসদ সৌমিত্র খাঁ সহ অন্যান্য নেতৃত্ব এবং বিজেপির কর্মী সমর্থকরা জামালপুর ব্লক অফিস পর্যন্ত মিছিল করে এসে অফিসের সামনে একটি বিক্ষোভ সভা করেন। বিজেপির পক্ষ থেকে সারের দাম বৃদ্ধি এবং কালোবাজারি বন্ধ করার দাবী নিয়ে জামালপুরের বিডিও শুভঙ্কর মজুমদারের কাছে একটি স্মারকলিপি প্রদান করেন। বিজেপির সাংসদ সৌমিত্র খাঁ আরও বলেন, রাজ্যে সারের অত্যাধিক দাম বাড়িয়ে কার্যত কৃষকদের জীবন ও জীবিকা ধ্বংস করে দিয়েছে। ফলে রাজ্য জুড়ে কৃষকরা আত্মহত্যা করছে। তিনি জামালপুরের কৃষকদের এক হয়ে এর প্রতিবাদে সোচ্চার হতে আহ্বান করেন।

যদিও এই প্রসঙ্গে পাল্টা প্রতিক্রিয়া জানিয়ে জামালপুর পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি তথা জামালপুর ব্লক তৃণমূলের সভাপতি মেহেমুদ খান জানান, সার কেলেঙ্কারিতে যুক্ত বিজেপির কেন্দ্রীয় সরকার। রাজ্যের মা মাটি মানুষের সরকারকে হেয় করার চক্রান্ত করে যাচ্ছে। অন্যান্য রাজ্যের তুলনায় দশ ছাব্বিস সার বাংলায় কম দেওয়া হওয়া হয়েছে। তবুও সমবায়ের মাধ্যমে কৃষকদের সার দেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। কয়েকটি এলাকায় কালোবাজারির অভিযোগ ব্লকের কৃষি দপ্তরে আসা মাত্রই ওই সব জায়গাগুলিতে হানা দেওয়া হয়েছে বেশ কয়েকবার। কাগজপত্র পরীক্ষা করা হয়েছে এবং একজনকে শোকজও করা হয়েছে। বিজেপির পায়ের তলায় মাটি নেই, সঙ্গে মানুষ নেই, তাই সর্ব সাকুল্যে দু – একশো লোক নিয়ে এসে এলাকায় বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি সৃষ্টি করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে তারা। কিন্তু জামালপুরের মানুষ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এর উন্নয়নকে বিশ্বাস ও ভরসা করে, তাই এই ধরনের মিথ্যা অভিযোগ কে তারা তোয়াক্কা করে না। তারা আগামি পঞ্চায়েত নির্বাচনে শুধু জামালপুর নয়, সারা রাজ্যের মানুষ বিশেষ করে গ্রাম বাংলার কৃষক সমাজ তৃণমূল কংগ্রেস কে সমর্থন করবে বলে এদিন জানিয়েছেন মেহেমুদ বাবু।

এদিনের বিজেপির কর্মসূচিতে যাতে কোন রকম অপ্রীতিকর পরিস্থিতির সৃষ্টি না হয় তার জন্য এসডিপিও সুপ্রভাত চক্রবর্তীর নেতৃত্বে প্রচুর পুলিশ ও র‍্যাফ মোতায়েন করা হয় জামালপুর ব্লক অফিসে।

Related posts

মেমারি কলেজ ছাত্রীকে ছুরি মারার ঘটনায় গ্রেপ্তার এক ব্যক্তি

E Zero Point

রায়ান গ্রামে লাদাখ সীমান্তে শহীদ বীর সেনাদের উদ্দেশ্যে মোমবাতি মিছিল

E Zero Point

ডেঙ্গু প্রতিরোধে সাফাই অভিযান

E Zero Point

মতামত দিন