29/02/2024 : 7:47 PM
আমার বাংলাপূর্ব বর্ধমানরসুলপুর

“সহানুভূতি” রসুলপুরের অসহায় মানুষের অক্সিজেন

রোহিত দাসগুপ্ত, রসুলপুরঃ  রসুলপুর ডাউন প্লাটফর্মে যে কিছু ব্যক্তি প্রতিদিন আড্ডা দিতে জমায়েত হন, তারা গত ২০০৮ সালে সমাজের পিছিয়ে পড়া কিছু মানুষদের দুর্গাপুজোর সময় জামা কাপড় দেবার সিদ্ধান্ত নেন, বিশেষত স্টেশন সংলগ্ন এলাকায় যাদের দোকান এবং যারা দিন আনা ও দিন খাওয়ার মধ্যে পড়ে। এই উদ্দেশ্য নিয়ে তারা একটি সংগঠন তৈরি করেন তার নাম দেওয়া হয় “সহানুভূতি”, কিন্তু পরবর্তী সময়ে শুধু মাত্র জামাকাপড় বিতরণের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকার চিন্তা ভাবনাটির পরিবর্তন করেন তারা।

বিগত ১২ বছর ধরে এই সংগঠনটি একজোট হয়ে গরীব ও দুঃস্থ মানুষদের আর্থিক সাহায্য করে আসছে, বিশেষত চিকিৎসার ক্ষেত্রে। এছাড়াও যেহেতু  রসুলপুরে কোন নার্সিংহোম বা হাসপাতাল নেই; তাই খুব কম খরচে সাধারণ মানুষকে নিরবিচ্ছিন্নভাবে অক্সিজেন পরিষেবা দিয়ে আসছে।

সংস্থা থেকে জানা গেল যে, ১২ বছরে মোট দশটি অক্সিজেন সিলিন্ডার ও আনুষঙ্গিক জিনিসপত্র যার মূল্য প্রায় এক লক্ষ টাকার কাছাকাছি তার ব্যবস্থা করেছে এই সংগঠনটির সদস্যরা।

প্রায় তিন লক্ষ নগদ টাকা অন্তত ২৫০ জন গরীব মানুষকে ইতিমধ্যেই দিয়ে সহযোগিতা করেছে এবং তাদের ঔষধের ব্যবস্থাও করছে এখনোপর্যন্ত। গ্রুপের সদস্যরা প্রতি মাসে তাদের সামর্থ্য অনুযায়ী টাকা দিয়ে ফান্ডটি গঠন করেছে ও তাদের কর্মসূচি নিরবিচ্ছিন্ন ভাবে চালিয়ে যাচ্ছে।

নীরবে কাজ করে যাওয়া রসুলপুর এলাকার এই সংগঠনটি লকডাউন চলাকালীনও সমস্ত অক্সিজেন সিলিন্ডার যথা যত ভাবে স্যানিটাইজ করেই রোগীর বাড়িতে সরবরাহ করছে।


Related posts

বর্ধমানে বেসরকারী বাস না চলায় চরম ভোগান্তিতে কর্মরত মানুষ

E Zero Point

প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী জ্যোতি বসুর জন্মদিন পালন মেমারিতে

E Zero Point

২৩ জানুয়ারী মেমারিতে #অবিলম্বেস্কুলখুলুন মিছিলঃ আসুন মিছিলে পা মেলায়…..

E Zero Point

মতামত দিন