29/09/2022 : 7:55 PM
BREAKING NEWS
আমার বাংলাদক্ষিণ বঙ্গপূর্ব বর্ধমানমেমারি

বিধায়ক মধুসূদন ভট্টাচার্য্যের হাত ধরে মেমারিতে তৃণমূলে যোগদান

জিরো পয়েন্ট নিউজ ডেস্ক, মেমারি, ৩১ অগাষ্ট ২০২১:


রাজ্যে তৃতীয়বারের জন্য ক্ষমতায় ফিরেছে তৃণমূল কংগ্রেস। বিজেপির বাংলা জয়ের স্বপ্নকে কার্যত ধূলিসাৎ করে দিয়েছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বিধানসভা নির্বাচনের পূর্বে তৃণমূলের বড় বড় নেতা-নেত্রী থেকে শুরু করে রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তের স্থানীয় তৃণমূল কর্মীরা বিজেপিতে যোগ দিয়েছিল সোনার বাংলা গড়ার লক্ষ্যে। কিন্তু এখন বিজেপির প্রতি মোহভঙ্গ হয়ে বিজেপির টিকিটে জেতা বিধায়ক থেকে নেতা-নেত্রী, স্থানীয় কর্মীদের নিজেদের ঘরে ফেরা শুরু হয়েছে।
রবিবার ২৯ অগাষ্ট পূর্ব বর্ধমান জেলা তৃণমূল যুব কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক নিত্যানন্দ ব্যানার্জি হাত ধরে মেমারি ১ নম্বর ব্লকের বাগিলা অঞ্চলের দিলালপুর গ্রামের রায় পাড়ায় অন্যান্য বিরোধী রাজনৈতিক দল ছেড়ে বেশ কিছু কর্মী সমর্থক তৃণমূলে যোগদান করেন।
আর তার পরের দিনই বাগিলা অঞ্চলের নুদিপুর স্কুল পাড়ায় মেমারি বিধানসভার বিধায়ক মধূসুদন ভট্টাচার্য্যের হাত ধরে ৩৫০ টি পরিবার যোগদান করেন তৃণমূল কংগ্রেসে।
রবিবার পেট্রোপণ্যের মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে অবস্থান বিক্ষোভ সভা অনুষ্ঠিত হয় বাগিলা অঞ্চলে। এই সভায় শুধু বিজেপি নয় সিপিএম এবং তৃণমূল থেকে দূরে সরে যাওয়া বেশকিছু কর্মীরাও যোগদান করেন।
বিধায়ক ছাড়াও বিক্ষোভ ও যোগদান সভায় উপস্থিত ছিলেন পূর্ব বর্ধমান জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক ও মেমারি পৌরসভার প্রাক্তন ভাইস-চেয়ারম্যান সুপ্রিয় সামন্ত,  মেমারি -১ নম্বর ব্লক তৃণমূল কংগ্রেস সহ-সভাপতি সন্দীপ প্রামানিক ও মোহাম্মদ শাহজাহান, মেমারি শহর তৃণমূল যুব কংগ্রেসের সভাপতি সৌরভ সাঁতরা, মেমারি ১ নম্বর ব্লক তৃণমূল ছাত্র পরিষদের সভাপতি রাহুল দেব ঘোষাল, বাগিলা অঞ্চল তৃণমূল কংগ্রেসের কার্যকরী সভাপতি অর্ক ব্যানার্জী, মেমারি ১ নম্বর ব্লক এসটি সেলের সভাপতি কৃষ্ণ সরেন, পঞ্চায়েত সমিতির কৃষি কর্মাধ্যক্ষ সনাতন হেমব্রম, দেবীপুর অঞ্চল সভাপতি পার্থ সিদ্ধান্ত, তৃণমূল নেতা সুরজ মন্ডল, পাটোয়ারী মান্ডী, ছবি বন্দ্যোপাধ্যায় সহ অন্যান্যরা।
অনুষ্ঠানের শেষ পর্যায়ে মেমারি বিধানসভার বিধায়ক মধুসূদন ভট্টাচার্য্য নিজে স্থানীয় কয়েকজন মহিলার সঙ্গে কথা বলে তাদের অসুবিধার কথা শোনেন। পানীয় জলের সমস্যা সহ অন্যান্য অসুবিধা গুলি দূর করার চেষ্টা করা হবে বলে বিধায়ক তাদের আশ্বাস দেন।
এছাড়াও সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে তিনি জানান, বাগিলা অঞ্চলের দিলালপুর, সরলা, শশীনাড়া, গন্তারের কিছু তৃণমূল কর্মী আমাদের দলের প্রতি আস্থা হারিয়ে কিংবা সংগঠনের কিছু নেতাদের ব্যবহারে বিধানসভার নির্বাচনের সময় তৃণমূল থেকে দূরত্ব রেখেছিলেন তারা আবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রতি পুনরায় আস্থা রেখে আবার দলে ফিরে এসেছেন কোন পদের লোভে নয়।
বিধায়ক উপস্থিত সকল নেতা কর্মীদের উদ্দ্যেশে বলেন যে, দলের সকল নেতা কর্মীরা যেন একে অপরের প্রতি সম্মানজনক ব্যবহার করেন এবং এক সাথে কাজ করার জন্য অনুরোধ করেন।

Related posts

সেচ দপ্তরের কাজে ক্ষোভ প্রকাশ বিধায়কের

E Zero Point

অর্পিতা মুখোপাধ্যায়ঃ টালিগঞ্জের পর বেলঘরিয়ার ফ্ল্যাটেও ইডি হাতে টাকার হদিশ

E Zero Point

সুলতানপুরের পর নবপল্লীঃ ফের মেমারিতে রেশন বন্টনে অনিয়ম – ডিলারকে ঘিরে গ্রাহকদের বিক্ষোভ

E Zero Point

মতামত দিন