14/08/2022 : 9:48 PM
BREAKING NEWS
আমার বাংলা ই-জিরো পয়েন্ট সম্পাদকীয়

লড়াইটা শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতির কিন্তু বাঙালি মজেছে মিডিয়ার টিআরপি-তে

জিরো পয়েন্ট নিউজ ডেস্ক, এম.কে হিমু,  ২৮ জুলাই ২০২২:


শনিবার থেকে বাংলা ও দেশের মিডিয়া, ইডি, শাসক-বিরোধী নেতা যা খাওয়াচ্ছে আপামর বাঙালিকে, তাই খাচ্ছে বাঙালি। এক কথায় ঘরে বসে বোকা বাক্সের সামনে কিংবা মুঠোফোনে বিভোর বাঙালি প্রাক্তণ শিক্ষা মন্ত্রী তথা রাজ্যের বর্তমান শিল্পমন্ত্রীর ঘনিষ্ঠ বান্ধবীর ফ্ল্যাটের কোটি কোটি টাকা গুনছে ইডির সাথে পরোক্ষভাবে। সত্যি বলতে বেশিরভাগ বাঙালিই দুর্নীতিমুক্ত পশ্চিমবঙ্গ গড়ার চেয়ে নেতা, টাকা, বান্ধবী নিয়ে মজেছে। আর দেশের প্রথম শ্রেণীর মিডিয়াগুলো জানে টিআরপি বাড়াতে গেলে কি খাওয়াতে হবে দর্শক-শ্রোতাকে।

বুধবার ছিলো শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতির প্রতিবাদী আন্দোলনের ৫০০ দিন। কলকাতায় গান্ধী মূর্তির পাদদেশে ২০১৬ সালের নবম দশম একাদশ ও দ্বাদশ শিক্ষক নিয়োগে চরম দুর্নীতি হয়েছে । ১০-১২ লক্ষ টাকা দিলেই অযোগ্য প্রার্থীদের মিলেছে চাকরি । আর যোগ্য প্রার্থীরা হয়েছে বঞ্চিত ।  রোদ বৃষ্টি ঝড় জল উপেক্ষা করে চাকরিপ্রার্থীরা আন্দোলন করে চলেছে । তাদের দাবি তারা বিভিন্ন দপ্তরে চিঠি পাঠিয়েছেন তবুও তাদের কোনো সুরাহা মিলেনি। তাদের আরও দাবি তাদের কে অবিলম্বে নিয়োগ করে তাদের এই যন্ত্রণা থেকে মুক্তি দিতে হবে।

মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী প্রতিশ্রুতি শুধুমাত্র কয়েকটি শব্দ৷ এক চাকরী প্রার্থীর কথায়,  ‘আমরা শারীরিক, মানসিক ভাবে বিপর্যস্ত। আমাদের অর্ধাহারে কাটছে। আমাদের বয়সও নেই প্রায়। আমাদের হকের চাকরি চুরি করে নেওয়া হয়েছে, বিক্রি করে দেওয়া হয়েছে। আমরা কুকুরের মতো দফতরে দফতরে ঘুরে দুর্নীতির প্রমান দিয়েছি, তারপরও মুখ্যমন্ত্রী বলছেন জানি না।’

সেটা বুঝতে পেরেই নিজেদের দাবি নিয়ে অটুট আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন তাঁরা৷ কেউ এসেছেন পরিবারের প্রতিকুলতাকে দূরে সরিয়ে, কেউ এসেছেন কোলের বাচ্ছাটাকে নিয়ে, নেই জলের ব্যবস্থা, নেই শৌচাগারের ব্যবস্থাও৷ ভরসা দুটি ত্রিপল। শব্দ একটাই, দাবি একটাই স্বচ্ছ নিয়োগ করুক সরকার৷

একটু লজ্জ্বা হয় না রাজ্যের তথাকথিত শাসক দলের নেতা থেকে শুরু বিরোধী দলের নেতাদের। যারা নিজেরদের দলকে প্রতিষ্ঠিত করার জন্য রাজনৈতির তরজায় নেমেছেন। আর আমরা বাঙালি গণচেতনা জাগ্রত কবে হবে। একবার কি ভেবে দেখবো না যাদের রাস্তায় কেটে গেল যন্ত্রনার ৫০০ দিন, তাদের নৈতিক অধিকারের জন্য গণ আন্দোলনে সামিল কবে হবো? মুখ্যমন্ত্রী দলীয় স্বার্থের উর্ধে উঠে কবে কড়া পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন? বাঙালি কি আজও ঘুমিয়ে থাকবে?

 

Related posts

ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় মেমারি শহর যুব তৃণমূল কংগ্রেসের

E Zero Point

আঁচলের নতুন অফিস উদ্বোধন

E Zero Point

করোনা যোদ্ধা পুলিশ কর্মী ও সিভিক ভলেন্টিয়ারদের সম্মানপ্রদান

E Zero Point

মতামত দিন