08/02/2023 : 7:48 AM
আমার বাংলাদক্ষিণ বঙ্গপূর্ব বর্ধমান

কৃষি মন্ত্রীর উপস্থিতিতে আমফানে চাষের ক্ষয়ক্ষতির পর্যালোচনা বর্ধমানে

বিশেষ প্রতিনিধি, বর্ধমানঃ আমফানের প্রভাবে চাষের ক্ষয়ক্ষতি নিয়ে আজ বর্ধমান সার্কিট হাউসে পর্যালোচনা বৈঠক করেন রাজ্যের কৃষিমন্ত্রী আশিষ বন্দ্যোপাধ্যায়। দুই বর্ধমান, বাঁকুড়া ও বীরভূমের পরিস্থিতি নিয়ে বৈঠকে আলোচনা হয়। কৃষি মন্ত্রী ছাড়াও ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প দপ্তরের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ, রাজ্যের কৃষি উপদেষ্টা প্রদীপ মজুমদার,পূর্ব বর্ধমানের জেলা শাসক বিজয় ভারতী,  জেলা পরিষদের সভাধিপতি শম্পা ধাড়া সহ বাঁকুড়া, বীরভূম এবং পশ্চিম বর্ধমান জেলার প্রশাসনিক আধিকারিকরা এদিনের বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।

কৃষিমন্ত্রী আশিষ ব্যানার্জী বলেন, চার জেলার কৃষিতে ক্ষয়ক্ষতি নিয়ে বৈঠক হয়। এখনও পুরোপুরি ক্ষয়ক্ষতির রিপোর্ট আসেনি। সম্পূর্ণ রিপোর্ট তৈরি হলে নিঁখুতভাবে সব খতিয়ে দেখে তা মুখ্যমন্ত্রীর কাছে পাঠানো হবে। তবে পূর্ব বর্ধমান সহ চার জেলায় আমপানে ধান, তিল, সব্জী, আম সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিপুল পরিমান ক্ষতি হয়েছে। তিনি আরও জানান, সমুদ্রকুলবর্তী এলাকা তথা চাষের জমিতে লবণাক্ত জল ঢুকে গিয়ে সেখানকার জমির উর্বরতা নষ্ট হওয়ার আশংকা রয়েছে। ফলে এই বিষয়গুলিও খতিয়ে দেখা চলছে। পাশাপাশি মাছ চাষেরও ব্যাপক ক্ষতির আশঙ্কা তৈরি হয়েছে। এদিকে, এরই পাশাপাশি এদিন কৃষিমন্ত্রী এবং কৃষি উপদেষ্টা উভয়েই কৃষকদের শস্যবীমা করানোর কাজে আরও বেশি উৎসাহ বাড়ানোর আবেদন জানিয়েছেন।

কিন্তু পূর্ব বর্ধমান জেলার একাধিক ব্লকের চাষীরা অভিযোগ করতে শুরু করেছেন, তাঁরা শস্যবীমার ক্ষতিপূরণের টাকা পাচ্ছেন না। চাষীদের অভিযোগ, তাঁরা সরকারীভাবে শস্যবীমা করালেও সংশ্লিষ্ট ইনসিওরেন্স কোম্পানী তাঁদের ক্ষতির টাকা দিচ্ছেন না।

যদিও  কৃষিমন্ত্রী  জানিয়েছেন, রাজ্য সরকার সমস্ত বীমার প্রিমিয়ামের টাকা বীমা কোম্পানীকে নিয়মমাফিক দিয়ে চলেছে। উল্লেখ্য, এখনও পর্যন্ত পূর্ব বর্ধমান জেলায় আমফানের প্রভাবে চাষ-আবাদ, বিদ্যুত ও একাধিক জলসেচ প্রকল্পে প্রায় ৬০০ কোটি টাকার কাছাকাছি ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে জানিয়েছেন পূর্ব বর্ধমান জেলা পরিষদের সভাধিপতি শম্পা ধাড়া।

Related posts

আইনুল হককে সরানোর দাবিতে ফের বিক্ষোভ বর্ধমান পৌরসভায়

E Zero Point

পথদুর্ঘটনায় মৃত্যু হল এক সিভিক ভলেন্টিয়ারের

E Zero Point

ফুল ফুটুক না ফুটুক আজ বসন্ত

E Zero Point

মতামত দিন