16/06/2024 : 9:04 AM
আমার বাংলাদক্ষিণ বঙ্গপূর্ব বর্ধমানবর্ধমান

বর্ধমান শহরে পুলিশ প্রশাসনের সচেতনতা প্রচার ও মাস্ক বিতরণ

নিজস্ব সংবাদদাতা, বর্ধমান, ৯ জুনঃ পূর্ব বর্ধমান জেলা পুলিশের উদ্যোগে বর্ধমান শহর মূলকেন্দ্র কার্জন গেটের সামনে একটি সচেতনতামূলক সভার আয়োজন করা হলো। মাইক লাগিয়ে মানুষদের মধ্যে একটা সচেতনতা দিলেন পূর্ব বর্ধমান জেলা অতিরিক্তপুলিশ সুপার কল্যান সিনহা রায়, ডিএসপি হেডকোয়ার্টার সৌভিক পাত্র, বর্ধমান থানার আইসি পিন্টু সাহা এবং ট্রাফিক ওসি সংগ্রাম মৈত্রী। তারা মাইকে মানুষকে সচেতনতা বার্তা দেন যেমন মানুষকে সচেতন থাকার জন্য আবেদন করা হয়। মুখে মাস্ক পড়তে হবে এবং দূরত্ব বজায় রাখতে হবে।

গত ৩ মাস ধরে লকডাউন যেভাবে মানুষ গৃহবন্দি অবস্থায় পালন করেছে সেই জায়গা থেকে প্রশাসনের পক্ষ থেকে একটু ছাড় দেয়া হয়েছে যাতে তারা কিছু রোজগার করতে পারে এবং নিজের নিজের কাজ করে ঘরে ফিরতে পারে কিন্তু প্রশাসনের কিছু নিয়ম বাঁধা রয়েছে সেই সব নিয়ম যাতে মেনে চলে সেই সব বিষয়কে তুলে ধরা হলো এই সচেতন সভার মাধ্যমে পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে। তার পাশাপাশি পথ চলতি মানুষদের ৪০০০ হাজার মাস্ক বিতরণ করা হয়। যাতে মানুষ এই মাস্ক ব্যবহার করে এবং মানুষের মধ্যে যাতে একটা মাস্ক ব্যবহার করা কতটা প্রয়োজন সে বিষয়ে বলেন।

একটা সময় দেখা গিয়েছিল পুলিশ মানেই মানুষের মধ্যে একটা ভয় আতঙ্ক পুলিশ মানেই ধরবে ফাইন করবে, সেই জায়গা থেকে এখন লকডাউন এর পরে মানুষের মধ্যে আসল চিত্রটা ফুটে এসেছে পুলিশ প্রশাসন মানুষের জন্য কি কাজ করেছে, কোনরকম মানুষকে চোখ না রঙিয়ে হাতে লাঠি না নিয়ে যাদের মুখে মাস্ক নেই তাদেরকে একটি করে মাস্ক বিতরণ করা হচ্ছে। অতিরিক্ত পূর্ব বর্ধমান জেলা পুলিশ সুপার কল্যান সিনহা রায়, ডিএসপি হেডকোয়ার্টার সৌভিক পাত্,র বর্ধমান থানার আইসি পিন্টু সাহা, ট্রাফিক ওসি সংগ্রাম মৈত্র নিজের হাতে এই পথচলতি মানুষদের মাস্ক বিতরণ করলেন। রিক্সাওয়ালা থেকে শুরু করে চারচাকা, মোটরসাইকেল থেকে সাইকেল যাত্রী, পথ চলতি সমস্ত মানুষদের যাদের মুখে মাস্ক নেই তাদেরকে এই মাস্ক বিতরণ করা হয় বর্ধমান কার্জন গেট চত্বরে।

Related posts

নব্বই বছরে পা দিল ইন্ডিয়া ইন্সটিটিউট অব হাইজিন এন্ড পাবলিক হেল্থ

E Zero Point

ত্রিপাক্ষিক বৈঠকে পূর্বস্থলীর তাঁত কলগুলির খোলার সিদ্ধান্ত

E Zero Point

মেমারিতে সরকারী সম্পত্তি নষ্ট রোধ হোক

E Zero Point

মতামত দিন