01/10/2022 : 3:22 AM
BREAKING NEWS
আমার বাংলাদক্ষিণ বঙ্গপূর্ব বর্ধমানবড়শুল

ভ্রাম্যমান বাসে রক্তদান শিবির বড়শুলে

জিরো পয়েন্ট নিউজ – অতনু ঘোষ ও অর্ঘ্য ব্যানার্জি, শক্তিগড়, ২০ অগাষ্ট ২০২১:


শুক্রবার বড়শুল কিশোর সংঘ, বড়শুল নিউ সান ক্লাব ও বড়শুল কুমিরকোলা ইয়ং স্টার ক্লাবের যৌথ উদ্যোগে ও ব্যবস্থাপনায় পশ্চিমবঙ্গ সরকারের স্বাস্থ্য বিভাগের শীততাপ নিয়ন্ত্রিত ভাম্যমান ভলবো এসি বাসে দু’দিনব্যাপী স্বেচ্ছায় রক্তদান শিবিরের আজ ছিল প্রথমদিন।

শুক্রবার প্রথম দিনে ৫০ জন রক্তদাতা রক্ত দান করেন এবং আগামীও কাল ৫০ জন রক্ত রক্ত দান করবে বলে জানান উদ্যোক্তারা।

প্রত্যেক রক্তদাতাকে উৎসাহিত করার জন্য প্রত্যেক রক্তদাতার হাতে একটি করে শংসাপত্র ও একটি করে গাছের চারা প্রদান করা হয় উদ্যোক্তাদের পক্ষ থেকে।

এদিন রক্তদাতাদের উৎসাহিত করতে এই মহতী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বর্ধমান উত্তর বিধানসভা কেন্দ্রের বিধায়ক নিশীথ কুমার মালিক, সার্কেল ইন্সপেক্টর দেবনাথ সাধুখাঁ, শক্তিগড় থানার অফিসার ইন চার্জ কুনাল বিশ্বাস, বর্ধমান ২ নং পঞ্চায়েত সমিতির সহ সভাপতি অরুণ গোলদার, পূর্ত কর্মাধ্যক্ষ সৌভিক পান, বড়শুল ২ নং গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান সুস্মিতা সরেন, উপ প্রধান রমেশ চন্দ্র সরকার, পাল্লারোড পল্লীমঙ্গল সমিতির সন্দীপন সরকার সহ অন্যান্য বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ ও এই রক্তদান শিবিরের উদ্যোগী ৩ টি ক্লাবের সদস্য সদস্যারা।

প্রদীপ প্রজ্জ্বলনের মধ্য দিয়ে এই রক্তদান শিবির এর শুভ উদ্বোধন করেন বিধায়ক নিশিথ কুমার মালিক সহ উপস্থিত ব্যক্তিবর্গ।

বড়শুল কিশোর সঙ্গে সম্পাদক পার্থ ঘোষ জানান,  প্রতিবছর গরম কালে এবং বিশেষ করে এই করোনা পরিস্থিতিতে চারিদিকে একটা রক্তের সঙ্কট চলছে। সমাজের দায়িত্ব পালনই ক্লাব সংগঠনগুলির প্রধান উদ্দেশ্য হওয়াই উচিত বলে মনে করি। তাই এলাকার তিনটি ক্লাবের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাগন আলোচনা করে দুদিন ব্যাপি রক্তদান শিবিরের আয়োজন করেছি। ৫০ জন সেচ্ছায় রক্তদাতাদের মধ্যে মহিলা রক্তদাতা ছিলেন ১৫ জন, পুরুষ রক্তদাতা ছিলেন ৩৫ জন।

শুক্রবার স্বেচ্ছায় রক্তদান শিবিরে এলাকা সবুজায়ানের লক্ষ্যে সকল রক্তদাতাগনদের একটি করে চারাগাছ তুলে দেওয়া হয়। এব্যাপারে বড়শুল কিশোর সংঘের সম্পাদক পার্থ ঘোষ জানান মোট চার ধরনের চারাগাছ রক্তদাতাগনদের হাতে দেওয়া হলো। যেমন মহুয়া, পলাশ পিয়াল ও কুসুম। সদ্য মাউন্ট ইউনাম পর্বত শৃঙ্গ জয়ী মেমারির মহম্মদ নওয়াজ ও কৌশিক বাসুর ব্যবস্থাপনায় পুরুলিয়া জেলার বনদপ্তর থেকে এই চারাগাছগলি পাওয়া গেছে।

বড়শুল কিশোর সংঘের সম্পাদক পার্থ ঘোষ বলেন পুরুলিয়া জেলার সাথে পূর্ব বর্ধমান জেলার মধ্যে সিডস ও চারাগাছের মাধ্যমে দুই জেলার সেতুবন্ধনের কাজ করবে বড়শুল কিশোর সংঘ। তিনি আরও বলেন আমাদের দুই জেলার মধ্যে চারাগাছ বিনিময় করাই আমাদের বড়শুল কিশোর সংঘের প্রধান উদ্দেশ্য। পূর্ব বর্ধমান জেলার বিভিন্ন গাছের সিডস ও চারাগাছ (আম, জাম, কাঁঠাল সহ অন্যান্য চারাগাছ) পুরুলিয়ার একটি সংস্থাকে দেওয়া হবে। উক্ত সংস্থা সিডস থেকে অঙ্কুর করে তারপর চারাগাছ তৈরি করে ওই এলাকায় চারাগাছগলি রোপন করবে।

পুরুলিয়া জেলার পলাশ, কুসুম, মহুয়া, পিয়াল সহ অন্যান্য গাছের সীডস এনে আমাদের ক্লাব অঙ্কুর তৈরি করে তারপর চারাগাছ তৈরি করে এলাকায় সবুজায়ানের লক্ষ্যে রোপন করা হবে এবং বিলিও করা হবে। তার শুভ সূচনা করার উদ্দেশ্যে আজ প্রত্যেক রক্তদাতা গনদের প্রতীকী হিসাবে আজ ওই জেলার চারটি প্রজাতির চারাগাছ তুলে দেওয়া হলো।

পার্থ বাবু জানান ওই প্রজাতির গাছ আমাদের এই এলাকায় নেই। আগামী দিনে এই চারাগাছ এলাকায় পাড়ায় পাড়ায় রোপন করা হবে। এলাকার মানুষদের হাতে তুলে দেওয়া হবে পলাশ, পিয়াল, কুসুম ও মহুয়া প্রজাতির মতো গাছের চারা। পুরুলিয়া জেলার এই গাছগুলো আমাদের এলাকায় সচারাচর দেখা যায় না। করোনা পরিস্থিতিতে অক্সিজেনের ঘাটতি আমরা দেখেছি। তাই এলাকায় সবুজায়ানের উদ্দেশ্যে বড়শুল কিশোর সংঘ আগামী এক বছরের মধ্যে পাঁচ হাজার বিভিন্ন প্রজাতির গাছ এলাকায় রোপন করবে তার সূচনা হলো মাননীয় বিধায়ক নিশীথ কুমার মালিকের হাত দিয়ে

উল্লেখ্য আজকের এই রক্তদান শিবিরের অনুষ্ঠানে স্বস্তিপল্লীর একজন মেধাবী দুঃস্থ ছাত্রীকে একাদশ ক্লাসের পিওর সায়েন্স বিভাগের বই তুলে দেওয়া হয় বড়শুল কিশোর সংঘ পক্ষ থেকে।

 

 

Related posts

মন্তেশ্বরের শিক্ষকের অ্যাকাউন্ট থেকে উধাও সাড়ে পাঁচ লক্ষ টাকা, ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষ নির্বিকার

E Zero Point

করোনা প্রতিরোধে মহাকালের পুজো

E Zero Point

ভারতে ছাত্র যুব ফেডারেশনের বিক্ষোভ কর্মসূচী বর্ধমানে

E Zero Point

মতামত দিন