02/02/2023 : 7:58 AM
আমার বাংলাদক্ষিণ বঙ্গপূর্ব বর্ধমানমেমারি

সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এক অনন্য নিদর্শনের চিত্র মেমারিতে

জিরো পয়েন্ট নিউজ ডেস্কঅতনু ঘোষ, মেমারি, ১৬ নভেম্বর ২০২১:


পূর্ব বর্ধমান জেলার মেমারি থানার অন্তর্গত শ্যামনগর গ্রামের শ্যামনগর তরুণ সংঘ ও গ্রামবাসীদের উদ্যোগে জগদ্ধাত্রী পুজো নবম বর্ষ অতিক্রম করল।
আজ থেকে আট বছর আগে এই পুজোর সূচনা করে গ্রামের উঠতি বয়সের কিছু ছেলেরা। সেই মুহূর্তে গ্রামের বেশ কিছু মানুষ এই জগদ্ধাত্রী পুজোর পক্ষে সম্মতি না দিলেও পরবর্তী সময়ে সকল গ্রামবাসী মিলে এই পুজোয় উদ্যোগী হয়ে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয়।


সেদিন থেকেই এই পুজো বেশ ধুমধামের সাথেই অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে এই গ্রামে।
সপ্তমী, অষ্টমী,নবমী ও দশমী, এই চারদিন ধরে চলে পুজো। পুজোর চার দিন থাকে সান্ধ্যকালীন বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, যেখানে গ্রামের সকল সম্প্রদায়ের ছোট্ট ছোট্ট শিশু ও বাচ্চারা অংশগ্রহণ করে সকলকে আনন্দ দেয়।
ছোট ছোট সকল প্রতিযোগীকে উৎসাহিত করতে পুজো উদ্যোক্তাদের পক্ষ থেকে পুরস্কৃতও করা হয়।


দশমীর দিন দুপুরে হয় খিচুড়ি ভোগ বিতরন, যেখানে গ্রামের সাথে সাথে এলাকার বিভিন্ন ধর্মের মানুষ এসে, খিচুড়ি ভোগ গ্রহণ করেন। প্রতিমা নিরঞ্জনে বের হয় শোভাযাত্রা। গোটা গ্রাম প্রদক্ষিণ করে এই শোভাযাত্রা। মহিলা সহ গ্রামের সকলের অংশগ্রহণের পাশাপাশি এখানেও গ্রামের সকল ধর্মের মানুষও অংশগ্রহণ করে সকলের সাথে আনন্দে মাতোয়ারা হয়ে ওঠে।


পুজোর আনন্দে সকল ধর্মের মানুষ শামিল হওয়ার পাশাপাশি সকল ধর্মের বাচ্চারাও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করার ফলে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এক অনন্য নিদর্শনের চিত্র ফুটে ওঠে শ্যামনগর গ্রামের এই জগদ্ধাত্রী পূজায়। যদিও এই গ্রামের প্রতিটি উৎসবেই সকল ধর্মের মানুষ সমান ভাবে উৎসবের আনন্দে শামিল হয়।

জগধাত্রী পুজোর এই চারদিন আনন্দে কাটানোর পর বিসর্জনের সময় সকলের চোখে দেখা গেল বিষাদের ছায়া।  শ্যামনগর আট থেকে আশি সকলেই একটি বছর অপেক্ষা করে থাকবে মা জগদ্ধাত্রী আগমনের পথ চেয়ে।


Related posts

প্রধান শিক্ষিকা ঘেরাও পান্ডুয়ায়

E Zero Point

হলদিবাড়ি রেল স্টেশনে করা করোনা নিয়ে সচেতনতার বার্তা

E Zero Point

Positive News : বন্ধুর মৃত্যু বার্ষিকীতে অভাবী ছাত্রদের হাতে স্কলারশিপ প্রদান মেমারিতে

E Zero Point

মতামত দিন