30/09/2022 : 12:50 PM
BREAKING NEWS
আমার বাংলাদক্ষিণ বঙ্গপূর্ব বর্ধমানবর্ধমান

দক্ষিণ দামোদরের বাস বর্ধমান শহরে প্রবেশে বাধা

জিরো পয়েন্ট নিউজ – কল্যাণ দত্ত, বর্ধমান, ৮ ডিসেম্বর ২০২১:


দক্ষিণ দামোদর- এর বাস বর্ধমান শহরে ঢুকতে না দেওয়ায় দক্ষিণ দামোদর এলাকার মানুষজন এর মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভ লক্ষ্য করা যাচ্ছে । বর্ধমান শহরের তেলিপুকুর থেকে বাস ন্যাশনাল হাইওয়ে ধরে আলিশা বাস স্ট্যান্ডে পৌঁছাতো এবং আলিশা থেকে বর্ধমান শহরের পারবিরহাটা হয়ে তেলিপুকুর আসতো।

কিছু দিন আগে থেকেই বন্ধ হওয়া বাস পরিবহন দক্ষিণ দামোদর সহ বিভিন্ন জেলার মানুষের অসুবিধা হলেও হাসিমুখে মেনে নিয়েছিলেন তারা সরকারি নির্দেশ কে।কিন্তু মঙ্গলবার থেকে হঠাৎ করেই সরকারি নির্দেশে আলিশা থেকে পারবিরহাটা যাত্রীবাহী বাস চলাচল করতে বাধা দেওয়া হয়। জানা যায় গত কয়েকদিন আগেই সরকারিভাবে বাস মালিকদের নির্দেশ দেওয়া হয় শহরের ভেতর দিয়ে কোন বাস দক্ষিণ দামোদর পৌঁছাবে না। অর্থাৎ দক্ষিণ দামোদর থেকে যাওয়া যাত্রীবাহী বাস এবং দক্ষিণ দামোদর এলাকায় আসা যাত্রীবাহী বাস গুলিকে শহরের বাইরে দিয়ে যাতায়াত করতে হবে।

ক্ষোভে ফেটে পড়ে দক্ষিণ দামোদর সহ বিভিন্ন জেলার মানুষরা। সরকারি ভাবে দেওয়া এই নির্দেশকে কোনোভাবেই মানতে পারছেন না দক্ষিণ দামোদর বাস ওয়েলফেয়ার সমিতির সাধারণ সম্পাদক থেকে সমস্ত সদস্যরা। দক্ষিণ দামোদর বাস ব্যবসায়ী ওয়েলফেয়ার সমিতি র সাধারণ সম্পাদক শেখ রিয়াজ উদ্দিন আমেদ বলেন দক্ষিণ দামোদর এলাকা থেকে রাজ্য সড়ক ৭ এর উপর দিয়ে বর্ধমান জেলা সহ হাওড়া হুগলি দুই মেদিনীপুর ঝাড়গ্রাম বাঁকুড়া ও পুরুলিয়া জেলা থেকে কমবেশি ২৬০ টি যাত্রীবাহী বাস পরিষেবা দেয় প্রতিদিন। এতে করে বাস ব্যবসায়ীরা যেমন বিপদে পড়ল তেমনি বিপদে পড়ল নিত্যযাত্রী সহ অন্যান্য যাত্রীরা। কলকাতা মহানগরী,আসানসোল সহ রাজ্যের বিভিন্ন শহরে রেল স্টেশন বা শহরের মধ্যস্থলে বিভিন্ন এলাকা থেকে যাত্রীবাহী বাস প্রবেশ করে। সেখানে কোন যানজটের সৃষ্টি হয় না। শুধুমাত্র বর্ধমান শহরের বিভিন্ন এলাকা থেকে যাত্রীবাহী বাস ঢুকলেই বর্ধমান শহরের যানজট সৃষ্টি হয়।

তিনি আরো বলেন বিষয়টি তা নয় একশ্রেণীর মানুষ অঙ্গুলিহেলনে টোটো ব্যবসার মাধ্যমে অধিক লভ্যাংশের জন্য বর্ধমান শহরে যাত্রীবাহী বাস ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না। পূর্ব বর্ধমান জেলার পাঁচটি বিধানসভার যে সব বিধায়ক আছেন ওনারা দক্ষিণ দামোদর এলাকাতেই জন্মগ্রহন এবং বসবাস করেন। দক্ষিণ দামোদর এলাকায় জেলা পরিষদের সদস্য আছেন ৭ জন তারাও দক্ষিণ দামোদর এর মানুষ। ওই পাঁচ বিধায়ক এবং সাত জেলা পরিষদের সদস্যদের মধ্যে অধিকাংশ জনই বলেন এই নির্দেশিকার বিষয়ে আমরা জানি না। আমাদেরকে না জানিয়ে কেন এমন সিদ্ধান্ত সেটাও বুঝে উঠতে পারছিনা। পূর্ব বর্ধমান জেলা সভাধিপতি তথা রায়না বিধানসভার বিধায়িকা শম্পা ধাড়া বলেন ২০১৪ সালে তৎকালীন এস পি, ডি এম, বি ডি এর চেয়ারম্যান এবং সভাধিপতি সহ আরও অন্যান্য আধিকারিকদের নিয়ে বর্ধমান শহরে বাস প্রবেশ বন্ধ করেছিলেন।শম্পা ধারা কোর্টের নির্দেশের কথাও বলেন এমনিতেই তেলিপুকুর বাস স্টপেজ নেই যাত্রীনিবাস নেই কোনো শৌচাগার। বয়স্ক যাত্রীদের সহ মহিলাদের প্রচুর অসুবিধা এই সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দেন সভাধিপতি । পূর্ব বর্ধমান জেলার যুব সভাপতি তথা জামালপুর বিধানসভার বিধায়ক অলোক কুমার মাঝি বলেন ২০১৪ সাল থেকে যে পদ্ধতিতে যাত্রীবাহী বাস গুলি যাতায়াত করতো সেই পদ্ধতি চালু রাখার জন্যই আর্জি জানিয়েছেন | জেলা শাসক, জেলা পুলিশ সুপার সহ সমস্ত আধিকারিকদের সঙ্গে কথা বলে অবিলম্বে দক্ষিণ দামোদরের জন্প্রতিনিধিদের নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক ডাকার আয়োজন করছেন | তিনি আরও বলেন বর্ধমান শহরের সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ করতে না দিলে অতি অবশ্যই দক্ষিণ দামোদর এলাকায় সাব ডিভিশনাল অফিস সাব-ডিভিশনাল কোর্ট সহ সাবডিভিশনাল হসপিটাল তৈরি করে দেওয়ার আর্জি জানিয়েছেন । প্রয়োজনে তিনি রাজ্যের মানবিক মুখ্যমন্ত্রী মমতার দ্বারস্থ হবেন |

খণ্ডঘোষ বিধায়ক নবীনচন্দ্র বাগ বলেন বর্ধমান শহরের সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ না হওয়ায় দক্ষিণ দামোদর এর মানুষ তাদের প্রাণকেন্দ্র শহর ঢুকতে না পারার জন্য ব্যাপক অসুবিধা হচ্ছে এবং অতি অবশ্যই লিখিতভাবে বিধানসভার স্পিকার কে এই বিষয়টি জানাবো। খণ্ডঘোষ ব্লক সভাপতি অপার্থিব ইসলাম বলেন মাননীয় মুখ্যমন্ত্রী তথা প্রিয় দিদি মমতা ব্যানার্জির কানে এই বিষয়টি অবগত করানো হয়নি বলেই আজ এই অবস্থা। প্রশাসনিকভাবে বর্ধমান শহরে যানজট মুক্ত করার জায়গায় টোটো ব্যবসায়ীদের মাধ্যমে বেশি যানজট তৈরি হচ্ছে। প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।


Related posts

বামপন্থী ছাত্র ও যুব সংগঠনের জনতার রান্নাঘর বসিরহাটে

E Zero Point

তদন্তে শ্রেষ্ঠত্বের জন্য কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর পুরস্কার পেলেন সাব-ইন্সপেক্টর প্রদীপ পাল

E Zero Point

দেবীপুর জিটি রোড বাজার কমিটির উদ্যোগে রক্তদান শিবির

E Zero Point

মতামত দিন