26/01/2023 : 11:01 AM
আমার দেশ

পশুখাদ্যে পুরস্কৃত বাংলার এক কারখানা

জিরো পয়েন্ট নিউজ ডেস্ক, দিল্লী, ৭ জুলাই ২০২২:


দেশের খাদ্য ও পুষ্টি নিরাপত্তা, গ্রামীণ আয় ও সমৃদ্ধি এবং সামগ্রিক অর্থনৈতিক উন্নয়নের বৃহত্তর লক্ষ্যের প্রতি পশু স্বাস্থ্যের তাৎপর্য বোঝার জন্য আজ NASC কমপ্লেক্স, নয়াদিল্লিতে প্রথম ইন্ডিয়া অ্যানিমাল হেলথ সামিট 2022 অনুষ্ঠিত হয়েছে।
ইন্ডিয়ান চেম্বার অফ ফুড অ্যান্ড এগ্রিকালচার (আইসিএফএ) এবং এগ্রিকালচার টুডে গ্রুপ আয়োজিত ‘ইন্ডিয়া অ্যানিমাল হেলথ সামিট ২০২২’-এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন শ্রী রুপালা। তিনি বলেন, পশুর সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করার মাধ্যমে পশু চিকিৎসকরা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছেন। শ্রী রুপালা দেশের সেবায় পশুচিকিত্সকদের কাজের যথাযথ স্বীকৃতি দেওয়ার জন্য যে উদ্যোগ নেওয়া যেতে পারে সে সম্পর্কে সাধারণ জনগণের পরামর্শের আহ্বান জানান।


এই অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করতে গিয়ে, শ্রী অতুল চতুর্বেদী, পশুপালন ও দুগ্ধায়ন বিভাগের সচিব বলেছেন যে পশু স্বাস্থ্য এক স্বাস্থ্যের একটি খুব প্রধান উপাদান এবং বৃহত্তরভাবে সম্প্রদায়ের পশুচিকিত্সকদের আরও বেশি সম্মান নিশ্চিত করা দরকার। তিনি বলেন, অধিদপ্তর পশু মহামারী প্রস্তুতি মোকাবেলায় উদ্যোগ নিচ্ছে।
দুই দিনের এই ইভেন্টে অ্যানিমেল হেলথ পলিসি উদ্যোগ থেকে শুরু করে ব্যবসায়িক পরিবেশ এবং অ্যানিমেল হেলথ সেক্টরে বিনিয়োগের সুযোগের মতো বিষয় নিয়ে প্যানেল আলোচনার আধিক্য থাকবে। বিকশিত আলোচনাগুলি পরে নথিভুক্ত করা হবে এবং কর্তৃপক্ষের কাছে উপস্থাপন করা হবে।


ডাঃ প্রবীন মালিক, কমিশনার, পশুপালন; ডাঃ কেএমএল পাঠক, চেয়ারম্যান, আইসিএফএ ওয়ার্কিং গ্রুপ অন অ্যানিমাল হাজবেন্ড্রি, ডঃ উমেশ শর্মা, প্রেসিডেন্ট ভেটেরিনারি কাউন্সিল অফ ইন্ডিয়া, ডাঃ ডিটার জোসেফ শিলিঙ্গার, ডিডিজি, ইন্টারন্যাশনাল লাইভস্টক রিসার্চ ইনস্টিটিউট, ডাঃ বিএন ত্রিপাঠি, ডিডিজি অ্যানিমাল সায়েন্স, আইসিএআর, ডাঃ এম জে খান, চেয়ারম্যান , ইন্ডিয়ান চেম্বার অফ ফুড অ্যান্ড এগ্রিকালচার এবং মিসেস মমতা জৈন, এডিটর এবং সিইও, এগ্রিকালচার টুডে গ্রুপ এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন৷

প্রসঙ্গত , গুণগত মান এবং বাজার মূল্যর চাহিদা এর ভিত্তি এবং বেশ কিছু শর্তাবলী অতিক্রম করে পশু খাদ্যের সেরা কোম্পানির অ্যাওয়ার্ড জিতে নিলো আমূল কেটলফিড অ্যান্ড ফীড সাপ্লিমেন্ট তথা আমূল কোম্পানি। আর সেই ফিড সাপ্লিমেন্ট ও গো খাদ্য বিক্রয় করে এই গো খাদ্যের অনটনের চাহিদা পুরন করছে এই রাজ্যও।


আমূল এর সুপারভাইজার শ্রী তন্ময় দে মহাশয় এবং সদ্য পাদ্যতাগকারি আমূল অফিসার শ্রী বুদ্ধদেব বিশ্বাস এর কথায় “আমূল এর গো খাদ্য সত্যই গুণগত ও বাজার চাহিদা অনুযায়ী চাষীদের জন্য অত্যন্ত লাভজনক”।
আমূল ক্যাটেল ফীড তৈরি কারখানা জয়রামবাটি প্লান্ট থেকে সরাসরি পৌঁছে যাই সমিতির মাধ্যমে চাষীর বাড়িতে এবং মুর্শিদাবাদ এর ক্ষেত্রে পাওয়া খবর অনুযায়ী প্রথমে আমূল প্ল্যান্টে এরপর সমিতিতে পরে চাষীর বাড়িতে। এহেন বিজয় লাভ বাংলার জন্য অত্যন্ত সুখবর এবং গর্বেরও।

Related posts

এনসিআরপিবি ৩১ হাজার কোটি টাকার বেশি একাধিক প্রকল্পের জন্য ১৫ হাজার কোটি টাকার বেশি ঋণ মঞ্জুর করেছে : দুর্গাশঙ্কর মিশ্র

E Zero Point

কৃষকদের স্বল্প মূল্যে সার সরবরাহ

E Zero Point

ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে হু-র দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া অঞ্চলের ৭৩ তম অধিবেশনে ডাঃ হর্ষবর্ধনের অংশগ্রহণ

E Zero Point

মতামত দিন