29/09/2022 : 8:19 PM
BREAKING NEWS
অন্যান্য

জিরো পয়েন্ট রবিবারের আড্ডা | সুতপা দত্ত, শান্তনু পাল, নদেরচাঁদ হাজরা, বিমল মণ্ডল 

জিরো পয়েন্ট সাহিত্য আড্ডা

রবিবারের আড্ডা

এই সাপ্তাহিক ওয়েব পেজটি

————–৫ এপ্রিল ২০২০ রবিবার—————

গল্প


আগুন পাখি

সুতপা দত্ত

প্রিয়ার ফোনটা কাট করে পাশের সিটে রেখে, গাড়িতে স্টার্ট দেয় অর্ণব । বাড়ি ফেরার আগে প্রিয়াকে ফোন করাটা ওর প্রতিদিনের অভ্যেস ,সাথে ডিনারের মেনু জানা। অনি গাড়িতে স্টার্ট দিলেই প্রিয়াও টেবিল গোছানো ,খাবার গরম শুরু করে দেয় । এরপর দুটিতে বকবক করতে করতে ডিনার সারে । তারপর একটু ব্যালকনি-আড্ডা সেরে শুতে যায়।
অনির ফিরতে রোজই রাত্তির হয় , রাত বারোটা এখন নর্ম্যাল টাইমিং , আগে তবু দশটার মধ্যে বেরিয়ে পড়তো , এখন আর হয় না। বিশাল অফিস কম্পাউণ্ড পেরিয়ে মেন রাস্তায় প্রায় আড়াই তিন কিলোমিটার আসার পর শর্ট রুট নিয়ে নেয় অনি , এতো রাতেও মেন রাস্তায় সেই ট্র্যাফিক জ্যাম , তখন আর ইচ্ছে করে না , তাই গা ছমছম করলেও বরাবর এই রাস্তা দিয়েই ফেরে অর্ণব। দুটো গাড়ি পাশাপাশি যাওয়ার মতো রাস্তা , দুপাশে ঘন গাছের সারি , প্রথম বাঁকটা পেরোলেই আর একটা বাঁক , দ্বিতীয় বাঁকটার মুখেই সেই হাড় হিম করা অশ্বত্থ গাছটা আর তার নিচের ঘন অন্ধকার , অদ্ভুত একটা ফিলিং হয় ওর রোজই । এই জায়গাটার বাতাসও কেমন যেন ভারি ভারি । রাতের দিকে গাড়িও খুব কম যায় এদিকে , ফলে বেশ ফাঁকা ফাঁকা লাগে, প্রিয়া বারবার নিষেধ করা সত্বেও অনি কিন্তু এই রাস্তা ধরেই ফেরে ।
২২শে মার্চ , সোমবার । দু‘দিন ছুটির পরে আজ অফিস জয়েন করেছে অনি । ইয়ার এণ্ডিং এর ঝামেলায় আজ বেরোতেই সাড়ে বারোটা হয়ে গেল , প্রিয়ার ফোন রেখে ড্রাইভিং-এ মন দিলো অনি। আজও একই রাস্তা , সেই গা ছমছমে ভাব , আবারও সেই বাঁক । তবে আজকের দিনটা অনির মানসপট থেকে মুছে যাবে না কোনোদিনই । প্রথম বাঁকটা ঘুরতেই দূরে একটা জ্বলজ্বলে বিন্দু নজরে পড়ল , প্রথমে ভেবেছিল কোনো গাড়ির হেড লাইট , আর একটু এগোতেই বুঝলো আগুনের গোলার মতো কিছু , সাইজে বাড়ছে ! দ্বিতীয় বাঁকটা ঘুরতেই বলটা তীব্র বেগে ছুটে এলো , একদম কাছে আসতেই মনে হলো একটা জ্বলন্ত পাখি , কিছু রিএ্যাক্ট করার আগেই ঝাঁপিয়ে পড়লো গাড়ির উইন্ডস্ক্রিনে , নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলেছিল প্রায় কিন্তু সামলে গেল কোনো মন্ত্রবলে , পাশ থেকে মোবাইলটা তুলে নিল , ওর অনামিকা দশটা সংখ্যা ছুঁয়ে দিল। তারপরের সময়টুকু যেন কোনো স্বপ্নের ঘোর  , গ্যারেজে  গাড়িটা ঢুকিয়ে কিছুটা যেন টলতে টলতেই লিফ্টে উঠল । ঘরে ঢোকার আগে যারপরনাই স্বাভাবিক হওয়ার চেষ্টা করল , প্রিয়া জানলো না কিছুই ।
বিয়ের পরেই অনির সাথে ব্যাঙ্গালোর চলে এসেছিল প্রিয়া , অনভ্যস্ত হাতে ধীরে ধীরে গুছিয়ে নিয়েছিল সংসার। দু’কামরার সাজানো গোছানো পরিপাটি ফ্ল্যাট , ব্যালকনি-তে একটু সবুজের রেশ , মাথার উপরে নীল আকাশের হাতছানি, ভালো আছে প্রিয়া – অনি। বাড়ি থেকে সকলেই একে একে ঘুরে গেছেন , দেখে গেছেন ওদের রাজ্যপাট , সক্কলে খুশি, আর কি চাই! সারা সপ্তাহের ব্যস্ততার শেষে একটু আউটিং, একটু গেট-টুগেদার , এইসব নিয়েই কেটে যায় মাসের পর মাস।
ভালোই ছিল ওরা , খুব ভালো ছিল  , কিন্তু  সুখ বড়ো আপেক্ষিক ।  ইদানীং বড্ড অন্যমনস্ক থাকে অনি , ঠিকমতো খাওয়া  দাওয়া করে না , একটুতেই ধৈর্য্য হারিয়ে ফেলে , খিটখিট করে সবসময় । সমীর-দার ওই ভাবে চলে যাওয়াটা অনি মেনে নিতে পারে নি । প্রিয়া কি কম কষ্ট পেয়েছে ! কিন্তু অনি এতটাই সফ্ট যে মন থেকে কিছুতেই  ঝেড়ে ফেলতে পারছে না ঐ স্মৃতি। শিশুর মতো প্রিয়ার হাত দুটো ধরে বলে ‘ আমি বাঁচতে চাই , প্লিজ আমাকে বাঁচাও ’ ।  কখনও বলে , ‘ আর বাঁচবো না আমি , আমার কিছু একটা হয়েই যাবে ’।  ভয়ে অস্থির অস্থির লাগে প্রিয়ার , তবু ধৈর্য্য ধরে বোঝায় , সাহস দেয় । অনেকবার বাড়িতে বলবে ভেবেছে , পারে নি , অতদূরে ওদের সবাইকেও ব্যস্ত করে তুলতে মন চায় নি । কিন্তু এখন যেন ওর বড্ড বেশি ভয় করছে । আজকাল বাড়ি ফিরতেও দেরী হচ্ছে , বেরোনোর পরের ফোন কল আর বাড়ি পৌঁছানোর সময়ের ব্যবধান দিন দিন বাড়ছে , প্রশ্ন করলেও সদুত্তর নেই ।
২২শে মার্চ থেকে আজ ২৯শে মার্চ , একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটে চলেছে রোজই , কিন্তু কেন ! কি ঘটছে ! কেনই বা ঘটছে ! অফিসেও এবার তার প্রভাব পড়েছে , কাজ করতে পারছে না কিছুতেই , না খাওয়া, না ঘুম । আজও এসব ভাবতে ভাবতেই এসে পড়লো সেই বাঁকটা , ভয়ে কাঁটা দিল গায়ে, বিস্ফারিত দু‘টো চোখ নিবদ্ধ হলো সামনের রাস্তায় , আসছে , ঐ তো আসছে , সারা শরীরে বিদ্যুত প্রবাহ , প্রচণ্ড জোরে ডানা ঝাপটে এগিয়ে আসছে ,  আগুনে পাখিটা , নির্ভুল লক্ষ্যে ঝাঁপিয়ে পড়লো অনির গাড়ির কাঁচে , মুহুর্তের জন্য নিয়ন্ত্রণ হারালো অনি , কোনো অঘটন ঘটে নি আজ পর্যন্ত , গাড়ি চলছে আগের মতোই , তবে গতি অনেক শ্লথ । কোনো এক মন্ত্রবলে আবারও তুলে নিল মোবাইলটা, অনামিকা ছুঁয়ে দিল সেই দশটা সংখ্যা ।
সুদূর বাঁকুড়া শহরের মৈত্র পাড়ার দোতলা বাড়িটার একবুক নিঃস্তব্ধতা ভেঙে খান খান হলো , চমকে উঠে ফোনটা রিসিভ করলো শর্মিষ্ঠা ।  কতবার ভেবেছে , ধরবে না ফোন , ভুল করছে ও , অন্যায় করছে , কিন্তু কোথায় যেন একটা মিল, খুব মিল , কোথায় যেন ভীষণ আকুতি এক্কেবারে তার ই মতো , ইচ্ছে করে ঘন্টার পর ঘন্টা কথা বলে , নামাতে পারে না ফোনটা কান থেকে , চলতে থাকে কথা বেশ কিছুক্ষণ ধরে , ওর কথা মতোই গুছিয়ে রাখে অফিসের  প্রয়োজনীয় কাগজপত্র , শুনে নেয় আগামীকাল কোথায় গিয়ে কার সাথে দেখা করলে কাজ মিটবে , সেই মতো মিটেও যায় সবকিছু । অনেকবার ভেবেছে বলবে কাউকে , অন্তত একবার প্রিয়াকে জানাবে , পারে নি , কি বলবে গুছিয়েই উঠতে পারে নি।
১০ই এপ্রিল , অনিকে নিয়ে ডাক্তারের চেম্বারে এসেছে প্রিয়া , সঙ্গে অনির ঘনিষ্ঠ দুই বন্ধু । ব্লাড প্রেসার অনিয়মিত , মাঝে মাঝে এলোমেলো কথা , ডক্টর সবটা শুনে দেখে মেডিসিন প্রেসক্রাইব করলেন , সাথে স্ট্রেস রিলিফের ওষুধ-ও , বললেন ঘুমটা খুব প্রয়োজন। কিন্তু রোগী জানে সে সুস্থ হবে না এতে , রেস্ট নেওয়ার বদলে সে অফিস যাওয়ার জেদ ধরে , বাড়িতে থাকলেও রাত্রি হলেই কোনো এক অছিলায় বাইরে যেতে চায় । প্রিয়াও মানসিকভাবে বিধ্বস্ত , কাকে বলবে , কিভাবে বলবে , ও কি ভাবছে , কি বুঝছে !! অফিস থেকে বেরোনোর পরে ওর সাথে কথা বলে ঠিকই , কিন্তু তারপরেও ওর ফোন বিজি থাকে অনেকক্ষণ , তাই দেরি হয় ফিরতে , প্রশ্ন করলে স্বীকার করে না , এমনকি মোবাইলের কললিস্ট ঘেঁটেও কিছু পায় না , স্বভাবতঃই একটা অদ্ভুত দোলাচলে প্রিয়াও শেষ হয়ে যাচ্ছে ।
কোনো  ইমপ্রুভমেন্ট না থাকায় , জেনারেল ফিজিসিয়ান আজ রেফার করে দিলেন সাইকোলজিস্টের কাছে । দু’ঘন্টার টানা সিটিং এর পর যখন প্রিয়ার ডাক পড়ল , সে তখন ভয়ে, ভাবনায়, উত্তেজনায় নিস্তেজ হয়ে পড়েছে , তবু শরীর টাকে টেনে নিয়ে হাজির হল ডক্টরের সামনে । তাঁর কথামতো একটা তীব্র মানসিক আঘাতের স্বীকার অনি , যার প্রত্যক্ষদর্শী প্রিয়াও । আরও দু’দিন ওনার কাছে আসতে বললেন , এবং খুব তাড়াতাড়ি ছুটি নিয়ে কয়েকটাদিন পরিজনদের মাঝে থাকার পরামর্শ দিলেন।
আজ অনির দাদা আসছেন ওদের নিয়ে যেতে । কাউন্সেলিং – এর রিপোর্ট অনুযায়ী , সমীর দার মৃত্যু গভীর দাগ কেটেছে অনির মনে । ছোটো থেকে দেখে আসা দাদার বন্ধু সমীর-দার একই শহরে বাড়ি। এয়ারফোর্সের  অফিসার , খুব অল্প বয়সেই ভালো পদ , বাঁকুড়ার বুকে বাড়ি , গাড়ি ।  বৌদি , দু‘বছরের তিতির আর পাঁচ বছরের  মৌ এতদিন বাঁকুড়ার বাড়িতেই ছিল বৃদ্ধ মা-বাবার কাছে। ছয় মাসের ব্যবধানে বাবা-মা দুজনেই চলে যাওয়ার পর বৌদিকেও কাছে নিয়ে যাবার প্রস্তুতি শুরু করেন দাদা , আর সেই মুহুর্তেই ঘটে যায় এক অভাবনীয় দুর্ঘটনা, ম্যাসিভ হার্ট এ্যাটাক । একটু স্টেবল হতেই এয়ারফোর্স অফিসাররা  সমীর দাকে নিয়ে  ব্যাঙ্গালোরের আর্মি হসপিটালে আসেন বেটার চিকিৎসার জন্য । বাড়ি থেকে ফোন পাবার পর দৌড়ে গিয়েছিল অনি আর প্রিয়া। খুব খুশি হয়েছিল দাদা ওদের দেখে । একটা অপারেশনের পর ধীরে ধীরে রিকভারিও হচ্ছিল । সে সময় অনি রোজ যেত , ওরা ডিসিশন নিচ্ছিল কলকাতায় শিফ্ট করানোর , সব আত্মীয় স্বজন তো ওদিকেই , তাই । ছোটো মেয়েটা অসুস্থ থাকায় বৌদিকেও আনা সম্ভব হচ্ছিল না , সেই সময় একদিন ওর হাত দুটো ধরে কেঁদে ফেলেছিলেন দাদা , বারবার বলেছিলেন ” আমাকে বাঁচা অনি , আমাকে বাঁচা , আমি খুব বাঁচতে চাই রে অনি , প্লিজ আমাকে বাঁচা” । অনি ডাক্তারদের জিজ্ঞাসা করেছিল , ওনারা আশ্বাসও দিয়েছিলেন , কিন্তু মানুষ ভাবে এক, হয় আর এক । কলকাতায় যাওয়ার দিন পাঁচেক আগেই শর্মিষ্ঠা বৌদি মেয়েদের নিয়ে পৌঁছে গিয়েছিলেন ব্যাঙ্গালোর, কিছু অফিসিয়াল সই সাবুদের কারণে। অনিরাও গিয়েছিল দেখা করতে। তার ঠিক দু‘দিন পরেই  ১৫ই মার্চ শনিবার , রাত আটটা নাগাদ বৌদির ফোন , সমীর দা আবার সিরিয়াস , তড়িঘড়ি গিয়ে পৌঁছালো ওরা । কি আকুতি সেই দুই চোখে বাঁচার ! বাকরুদ্ধ , শুধু জল পড়ছে চোখ থেকে অনবরত , আবার একটা ছোটো এ্যাটাক , কিন্তু এবার আর শেষ রক্ষা হলো না , রাত নটা ছয় , সব শেষ । ওঃ ! বৌদির সে কি হাহাকার , কি বুকফাটা আর্তনাদ ! সমীর দা শেষ অবধিও অনিকে যেন কিছু বলতে চাইছিলেন , অনি ডাক্তারদের হাত ধরে বারবার অনুরোধ করলেও তাঁদের সব চেষ্টা ব্যর্থ হলো সমীর দার লিখে আনা দিনের কাছে । দুটো অবোধ শিশু পিতৃ হারা হলো, অল্প বয়সী একটা মেয়ে স্বামী হারালো ,  কি হবে এখন ওদের ! কিভাবে বাঁচবে ! সারারাত, এমনকি পরদিন শেষকৃত্য পর্যন্ত সমীর দার পাশ থেকে একটুও নড়েনি অর্ণব ‌। লেলিহান শিখাটা সারা শরীরটাকে গ্রাস করে নেওয়া পর্যন্ত একভাবে চেয়েছিল সেইদিকে ।
প্রিয়া বুঝেছিল, এই ঘটনাই অর্ণবকে গ্রাস করছে তিলে তিলে । কিন্তু ফোনে এনগেজ থাকা , দেরি করে ফেরা – সব তালগোল পাকিয়ে যাচ্ছিল যেন  প্রিয়ার ।
অর্ণবের বাঁকুড়ার বাড়িতে আজ খানিকটা স্বস্তির বাতাবরণ , ছেলেকে কাছে পেয়ে বাবা-মাও অনেকটা আশ্বস্ত ।
ডাক্তার বলেছেন , মৃত ব্যক্তির শেষ কথাগুলোর সাথে নিজেকে ধীরে ধীরে জড়িয়ে ফেলেছিল অনি ; নির্জন রাস্তায়, অশ্বত্থ গাছের ভয়ার্ত পরিবেশে , চিতার লেলিহান শিখা আগুন পাখির রূপে ঢুকে পড়তো অনির মনের গোপন কুঠুরিতে ।তারপরেরটা মনোজগতের এক বিশেষ পরিস্থিতি , কিছুটা স্বপ্নের ঘোর , তাই সেটার প্রকিশটা এলোমেলো ।
বিকেলে শর্মিষ্ঠা গিয়েছিল অনি-দের বাড়িতে । সব ঘটনা শুনেই  গিয়েছিল দেখা করতে , ওর ও যে অনেএএএএক কিছু বোঝার ছিল, জানার ছিল । খুব সাবধানে কথা বলে এটুকু বুঝলো , অনি যে মোবাইলে কথা বলত সেটা  এখন অনির কাছে একটা ভ্রম , ঐ যে একটা অবচেতন মনের কল্পনা বা একজন অসহায় মানুষের প্রতি মনুষ্যত্বের তাগিদ। অনেকক্ষণ গল্প করার পর ফিরে এসেছিল শর্মিষ্ঠা ।
মনে মনে প্রার্থনা করেছিল প্রিয়া- অনি যেন ভালো থাকে , আর ওদের ভালো থাকাকে সুনিশ্চিত করতেই নিজেকে উন্মুক্ত করেনি কোনো ভাবেই। ও তো জানে , কোনোটাই কল্পনা নয় , প্রতিদিন রাতে , হ্যাঁ প্রতিদিন রাতে ও’ই রিসিভ করেছে সেই সব ফোন কলস , কথা বলেছে অনেক , যেখানে যা কিছু পাওয়ার ছিল তার সবটাই পেয়েছে ঐ ফোনেরই কারণে। তবে সে অনি নয় ; শর্মিষ্ঠার বাড়ির আলমারি , সেই আলমারিতে রাখা  কাগজপত্র , চেকবুক, পাসবই ,টাকা-পয়সা – এইসব কিছুর হিসাব যার কাছে ছিল , যে অকালে একলা করে দিয়ে চলে গেল , এ ‘সে’-ই  , হ্যাঁ ‘সে’-ই , ওর সমীর । পরিবারকে, আদরের সন্তানদের-কে ভেসে যাওয়ার হাত থেকে বাঁচাতেই অনির সাহায্য নিয়েছিল ‘সে’ ।
আজ দিন সাতেক তার ফোন আর আসে না , হয়তো আসবে না আর কোনোদিন , তবু শর্মিষ্ঠার অবচেতন মন রাত বারোটার অপেক্ষায় থাকবে প্রতিদিন । আরও একবার ভালোবাসা হারানোর যন্ত্রণায় ডুকরে উঠলো সমীরের আদরের শর্মি । মা’কে কাঁদতে দেখে ছোটো ছোটো দু’টো প্রাণ কচি কচি হাতে প্রাণপণে জড়িয়ে ধরলো তাদের মা-কে ।
এখন অপেক্ষা অনির পুরোপুরি সুস্থতার । সত্যি কি অনি মেনে নিয়েছে ডাক্তারের সবকথা ! ওর মন কি বলছে ! সব কল্পনা ! দেখা যাক সময় কি বলে ! তবে অন্য একজনের মনে কিন্তু বিঁধে রইল একটা কাঁটা – ‘এনগেজড টোন’ । উত্তর হাতড়ে চলেছে প্রিয়া ।

Related posts

বিশাখাপত্তনমের পর রায়গড়, ভয়াবহ গ্যাস লিকে অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি ৭ জন

E Zero Point

মেমারি পৌরসভার ৩ নং ওয়ার্ডে তৃণমূলের খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

E Zero Point

বর্ধমানের ৩ করোনা জয়ীদের স্বাস্থ্যকর্মীরা উপহার দিলেন

E Zero Point

মতামত দিন