25/02/2024 : 1:56 PM
আমার বাংলা

মহামানব ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর মহাশয়ের ১৩০তম প্রয়াণ দিবসে শ্রদ্ধার্ঘ্য

রূপাঞ্জন রায়ঃ

আজ ২৯শে জুলাই ভারতবর্ষের নবজাগরণের বলিষ্ঠ প্রতিনিধি, পার্থিব মানবতাবাদের প্রবক্তা, অক্ষয় মনুষ্যত্বের অধিকারী ঈশ্বর চন্দ্র বিদ্যাসাগরের ১৩০তম স্মরণ দিবস ‌। ১৮৯১সালের ২৯শে জুলাই তিনি মৃত্যুবরণ করেন। একই সাথে এই বছর বিদ্যাসাগরের দ্বি-শত জন্মবার্ষিকী চলছে।অজ্ঞানতার নিকষ কালো অন্ধকার ও ধর্মীয় কুসংস্কারের বেড়ি থেকে ভারতবাসীকে মুক্ত করার জন্য তিনি আজীবন নিরলস প্রচেষ্টা চালিয়ে গেছেন। তিনি বলতেন , ” মানুষ অনাহারে মরবে, ব্যাধি জরা মহামারীতে উজাড় হয়ে যাবে, আর দেশের মানুষ চোখ বুজে ‘ভগবান’ ‘ ভগবান’ করবে– এমন ভগবৎ প্রেম আমার নেই। আমার ভগবান আছে মাটির পৃথিবীতে।” গরীব অসহায় মানুষের চোখের জল,তাদের দুর্বিসহ জীবন- যন্ত্রণা সমস্ত বড় মানুষকেই গভীরভাবে নাড়া দিয়েছে। কিন্তু গরিব মানুষের প্রতি বিদ্যাসাগরের ভালোবাসা ও দরদবোধটা ছিল সম্পূর্ণ অন্য জাতের। মনের বিশালতা, হৃদয়ের ব্যাপকতার পাশাপাশি গরিব মানুষের প্রতি বিদ্যাসাগরের ছিল নাড়ির টান। তিনি বলেছিলেন, “দরিদ্রের দুঃখ কয়জন দেখিয়াছে, তাহাদের হৃদয়ের ব্যথা কয়জন বুঝিয়াছে ! যে ব্যক্তি যে দেশে জন্মগ্রহণ করেন, সে দেশের হিতসাধনে সাধ্যানুসারে সচেষ্ট ও যত্নবান হওয়া তাহার পরম ধর্ম ও তাহার জীবনের সর্ব প্রধান কর্ম।”
আজ তাঁর স্মরন দিবসে আমাদের শপথ নিতে হবে, মনুষ্যত্ব রক্ষার সংগ্রামে আমরা যেন ব্রতী হই। শিক্ষা-সংস্কৃতি ও নীতি-নৈতিকতার উপর যখনই আঘাত আসবে আমরা যেন রুখে দাঁড়াতে পারি। আমরা যেন মানব মুক্তির লক্ষ্যে সামনের দিকে আরো এগিয়ে চলতে পারি।

Related posts

বর্ধমানে প্রথম বৈকালিক রক্তদান শিবির

E Zero Point

১০০ দিনের কাজ চালুর দাবীতে বামেদের সভা মেমারিতে

E Zero Point

ভাতারে কন্টেনারের সঙ্গে ট্রাক্টরের মুখোমুখি সংঘর্ষ

E Zero Point

মতামত দিন