30/09/2022 : 9:43 AM
BREAKING NEWS
আমার বাংলাদক্ষিণ বঙ্গপূর্ব বর্ধমানমেমারি

প্রতিশ্রুতি সত্বেও রাস্তা হয়নি, আমাদপুর লন্ডন হয়েছেঃ তৃণমূলের সভায় ভাঙচুর মেমারিতে

জিরো পয়েন্ট নিউজ ডেস্ক, এম.কে হিমু, মেমারি,  ৩০ মে ২০২২:


চাপা ক্ষোভ ছিল অনেকদিনের। নির্বাচনের সময় প্রতিশ্রুতির বন্যা, আর ভোট মিটলেই বেপাত্তা নেতা। ভোটের আগে রাস্তা তৈরির জন্য বালি, পাথর, সিমেন্ট গ্রামে ঢুকলেও আবার নিয়ে চলে যায় রাস্তা তৈরির নির্মাণ সামগ্রী – এমনই সব ঝুড়ি ঝুড়ি অভিযোগ তৃণমূল পরিচালিত পঞ্চায়েতের বিরুদ্ধে ও একরাশ বিরক্তি, ক্ষোভ, হতাশা গ্রামবাসীদের একাংশের চোখে মুখে।

রবিবার বিকাল ৫ টা নাগাদ পূর্ব বর্ধমান জেলার মেমারি ১ পঞ্চায়েত সমিতির অন্তর্গত আমাদপুর অঞ্চলের বিজরা বারোয়ারি তলার মঞ্চে লক্ষীর ভান্ডার প্রাপক মা, বোনেদের সম্মান প্রদান ও নারী সুরক্ষা বিষয়ক আলোচনা সভা আয়োজন করেছিল বিজরা তৃণমূল মহিলা কংগ্রেস কমিটি। কিন্তু আলোচনা সভা শুরুর আগেই উপস্থিত গ্রামবাসীর একাংশ বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করে দীর্ঘদিন ধরে রাস্তা না হওয়ার জন্য। বিক্ষোভের মাত্রা শেষ পর্যন্ত ধস্তাধস্তি, হাতাহাতি ও ভাঙচুরের পর্যায়ে পৌঁছায়।

সভায় উপস্থিত আমাদপুর অঞ্চল প্রধান সাধনা হাজরা, উপ-প্রধান, বিজুর গ্রামের দুই অঞ্চল সদস্যাকে ঘিরে রেখে এই বিক্ষোভ ও ভাঙচুর চলে। দুই পক্ষের মধ্যে বচসা চরম মাত্রায় পৌঁছাতে মেমারি থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছায় ও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়ে আসে।

অঞ্চল প্রধান সাধনা হাজরা বিক্ষোভ চলাকালীন সাংবাদিকদের কোন প্রশ্নের উত্তর না দিলেও পরে তিনি টেলিফোনে জানান যে বিক্ষোভকারীরা তাদের কথা শুনতে চায়নি। আর রাস্তা তৈরির জন্য পর্যাপ্ত অর্থ তহবিল পঞ্চায়েতের কাছে নেই। এ ব্যপারে তিনি বিধায়কের সাথে বিস্তারিত আলোচনা করে জানাবেন।

বিক্ষোভের লাইভ দেখুন জিরো পয়েন্ট ফেসবুক পেজে https://www.facebook.com/zeropointpublication/videos/1036177647016424

অন্যদিকে বিক্ষোভকারীদের মধ্যে এক গ্রামবাসী শেখ ফিরোজ জানান, যে এব্যপারে সম্পূর্ণ দায়ী বিধায়ক মধুসূদন ভট্টাচার্য ও অঞ্চল প্রধান সাধনা হাজরা। বারবার প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয় কিন্তু তা পালনে তারা ব্যর্থ। এমনিক তিনি এটাও অভিযোগ করেন যে ভোটের সময় বিজরা গ্রাম থেকে বেশি ভোটে লিড দেয় বিধায়কের জন্য অথচ বিধায়কই তাদের গ্রামকে দেখছেন না।

এক মহিলা গ্রামবাসীর কথায় আমাদপুরের অলিতে গলিতে ঢালাই রাস্তা, আর বিজরা গ্রামের রাস্তায় চলা যায় না। বৃষ্টি হলে এক হাঁটু জল, বৃষ্টির পর কাদায় পিচ্ছিল হয়ে যায় চলা যায় না। বিধায়ক ও প্রধানের বাড়ি আমাদপুরে তাই, আমাদপুর লন্ডন হয়ে গেছে।

এব্যপারে বিধায়ক মধুসূদন ভট্টচার্য টেলিফোনে কার্যত রাস্তা তৈরি না হওয়ার অভিযোগ স্বীকার করে নেন এবং তিনি জানান বিডিও ও প্রধানের সাথে কথা বলে খোঁজখবর নেবেন। কিন্তু একটি নারী সুরক্ষা বিষয়ক সভায় এই ধরনের বিক্ষোভের পদ্ধতিগত ত্রুটি রয়েছে।

বিজরা গ্রামের ভাগাড়পাড়া, সায়েরের পাড় থেকে শুরু করে বিভিন্ন পাড়ার অলিগলির রাস্তার চেহরা যে ছবি ধরা পড়েছে তা খুবই খারাপ অবস্থা। আসন্ন বর্ষায় আরও খারাপ হাল হবে। ২০২০ সালে রাজ্য সরকারের পথশ্রী প্রকল্প ও উন্নয়ণের ১১ বছরে কর্মসূচীর প্রচারের পরও গ্রামের রাস্তার এ হেন হাল আগামী পঞ্চায়েত নির্বাচনে বিরোধীদের কাছে এক বড় ইস্যু হয়ে দাঁড়াবে সে কথা বলার অপেক্ষা রাখে না। অন্যদিকে মা-বোনেদের সম্মান প্রদান ও নারী সুরক্ষা বিষয়ক আলোচনা সভায় মহিলা অঞ্চল প্রধান সহ সদস্যাদের সাথে বিক্ষোভকারীদের ধস্তাধস্তির দৃশ্য প্রশ্নচিহ্নের সামনে পড়তে হতে পারে শাসকদলকে।

 

Related posts

বাবা ভ্যানচালক ছিলেন, মা জড়ির কাজ করেনঃ রেকর্ড গড়ে কমনওয়েলথে সোনা জিতলেন হাওড়ার অচিন্ত্য

E Zero Point

স্বেচ্ছায় রক্তদান শিবির

E Zero Point

মঙ্গলকোটে আবার দুর্ঘটনা, মৃত ১

E Zero Point

মতামত দিন